১ জুন, ২০২৩ | ১৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩০ | ১১ জিলকদ, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  ৪ দফা দাবিতে কক্সবাজার ডিপ্লোমা ইঞ্জিনিয়ারদের মানববন্ধন প্রতিবাদ সমাবেশ   ●  নির্মাণ সামগ্রীর গুনগতমান পরীক্ষায় চকরিয়ায় ল্যাব উদ্বোধন   ●  কক্সবাজার জেলা নেজামে ইসলাম পার্টির মাসিক সভা অনুষ্ঠিত   ●  দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে কক্সবাজার পৌর ও ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের ১৩ নেতা বহিস্কার   ●  উখিয়ায় জমি দখলে নিতে খুনের হুমকির অভিযোগ   ●  বিদগ্ধজনদের নিয়ে বিরূপ মন্তব্য থেকে প্রতিপক্ষকে বিরত থাকার আহবান মেয়র প্রার্থী মাহাবুবের   ●  কক্সবাজার পৌরসভার উদ্যোগে বিশ্ব তামাকমুক্ত দিবস উদযাপন   ●  কক্সবাজারে ওয়ার্ল্ডফিশ এর সিনার্জিস্টিক পার্টনারশীপ কর্মশালা   ●  সাগরে ইঞ্জিল বিকল হয়ে ১৩ দিন ভাসতে থাকা ২১ জেলে জীবিত উদ্ধার   ●  চকরিয়া ও টেকনাফে শীঘ্রই চালু হচ্ছে কউকের জোনাল অফিস

সিম বায়োমেট্রিক করায় মোবাইল ফোনে অপরাধ কমেছে: তারানা হালিম

a692ce03d07354d1f5ce853f0b88bc0cx479x290x13সিম বায়োমেট্রিক করায় দেশে মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সংগঠিত অপরাধ কমেছে বলে জানিয়েছেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ বিভাগের প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

মঙ্গলবার সচিবালয়ে মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন সচিব ফয়জুর রহমান চৌধুরী, বিটিআরসির শাহজাহান মাহমুদ এবং পুলিশ ও গোয়েন্দা সংস্থার প্রতিনিধিরা।

তারানা হালিম বলেন, ‘বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সিম রেজিস্ট্রেশনের ফলে চাঁদাবাজি, অপহরণসহ মোবাইল ফোনের মাধ্যমে সংগঠিত অপরাধ কমেছে।এ পদ্ধতিতে এখন আর কোনও অপরাধ সংগঠিত হয় না। এরপরও আমরা কিছু অভিযোগ পাচ্ছি মোবাইল ফোনের মাধ্যমে নানা জনকে নানা ধরনের হুমকি দেওয়া ও চাঁদা দাবি করা হয়। বিষয়টি আমরা পরীক্ষা নিরীক্ষা করে দেখছি।’

তিনি আরও বলেন, ‘মূলত এ ধরনের অপরাধ করা হচ্ছে কম্পিউটারাইজড প্রযুক্তি স্পুফিংয়ের (Spoofing) মাধ্যমে। এটি বায়োমেট্রিক পদ্ধতির কোনও ত্রুটি নয়।’

এক্ষেত্রে তারানা হালিম জনসাধারণকে সচেতন হওয়ার পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘যখনই এ ধরনের কোনও কল গ্রাহকরা পাবেন তখন কথা বলা শেষে সঙ্গে সঙ্গে সেই নম্বরে ফোন ব্যাক করবেন। তাহলে ওই প্রান্ত থেকে যিনি ফোন ধরবেন তার সঙ্গে কথা বললেই বোঝা যাবে তিনি আসল অপরাধী কিনা।’

স্পুফিং পদ্ধতিতে সংগঠিত অপরাধ বন্ধে কোনও ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে কিনা-জানতে চাইলে তারানা হালিম বলেন, ‘এ প্রক্রিয়া বন্ধ করতে খোঁজ নেওয়া হচ্ছে। আমরা বসে নেই, কাজ করছি।’

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ‘বায়োমেট্রিক সিস্টেম প্রবর্তন করার ফলে দেশে অবৈধ ভিওআইপি ব্যবসা ৩৫ শতাংশ থেকে ১০ শতাংশে নেমে এসেছে, বাকিটাও কমবে। বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে মাত্র ০ দশমিক ৫ পয়েন্টের নিচে ত্রুটি আছে। আগামীতে এ ত্রুটিও থাকবে না।’

তিনি বলেন, ‘এ যাবত সারা দেশে ১১ কোটি ৪০ লাখ সিম বায়োমেট্রিক করা হয়েছে। আগে একজন গ্রাহক ২০টি সিম রাখতে পারতেন কিন্তু এখন মাত্র ৫টি সিম কিনতে পারেন।’

এ সময় তারানা হালিম অভিযোগ করে বলেন, ‘বায়োমেট্রিক পদ্ধতিতে সামান্য যে ত্রুটি আছে তার মূলে জনসচেতনতার অভাব। কারণ অনেকে টাকার বিনিময়ে আঙুলের ছাপ বিক্রি হচ্ছে। ফলে কিছু অপরাধ সংগঠিত হচ্ছে। এটা বায়োমেট্রিক পদ্ধতির কোনও ত্রুটি না।’

তিনি জনসাধারণকে পরামর্শ দিয়ে বলেন, ‘গ্রাহকরা যখন আঙুলের ছাপ দেবেন, তখন মেশিনে নিজের জাতীয় পরিচয় পত্রের নম্বরটি উঠেছে কিনা তা নিশ্চিত হবেন। তাহলে কেউ আঙুলের ছাপ চুরি করে সিম রেজিস্ট্রেশন করতে পারবে না।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।