২০ এপ্রিল, ২০২৪ | ৭ বৈশাখ, ১৪৩১ | ১০ শাওয়াল, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  কক্সবাজার পৌরসভায় প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তারিকুলের বরণ ও উপ-সহকারি প্রকৌশলী মনতোষের বিদায় অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত   ●  জলকেলি উৎসবের বিভিন্ন প্যান্ডেল পরিদর্শনে মেয়র মাহাবুব   ●  উখিয়া সার্কেল অফিস পরিদর্শন করলেন ডিআইজি নুরেআলম মিনা   ●  ‘বনকর্মীদের শোকের মাঝেও স্বস্তি, হত্যার ‘পরিকল্পনাকারি কামালসহ গ্রেপ্তার আরও ২   ●  উখিয়া নাগরিক পরিষদ এর ঈদ পুনর্মিলনী ও মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত   ●  আদালতে ফরেস্টার সাজ্জাদ হত্যার দায়স্বীকার সেই ডাম্পার চালক বাপ্পির   ●  ‘অভিযানে ক্ষুব্ধ, ফরেস্টার সাজ্জাদকে পূর্বপরিকল্পনায় হত্যা করা হয়’   ●  ফাঁসিয়াখালীতে পৃথক অভিযানে জবর দখল উচ্ছেদ, বালিবাহী ডাম্পার জব্দ   ●  অসহায়দের পাশে ‘রাবেয়া আলী ফাউন্ডেশন’   ●  ফরেস্টার সাজ্জাদ হত্যার মূল ঘাতক সেই বাপ্পী পুলিশের জালে

টেকনাফে স্বামীর নির্যাতনে গর্ভবর্তী মহিলার মৃত্যু!

full_2028841631_1406452606
টেকনাফের হোয়াইক্যংয়ে যৌতুক লোভী স্বামীর নির্যাতনে হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় এক গর্ভবতী মহিলার নির্মম মৃত্যু ঘটেছে বলে অভিযোগ উঠেছে। তবে স্বামীর পরিবার পক্ষ দাবী করছে গর্ভের সন্তান নষ্ট করতে গিয়েই মহিলার মৃত্যু ঘটেছে। এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত লাশ পোস্ট মর্টেমের জন্য মর্গে রয়েছে।
নিহত মেয়ের পরিবার জানায়,টেকনাফ উপজেলার হোয়াইক্যং ইউনিয়নের খারাংখালীস্থ পশ্চিম সাতঘরিয়া পাড়ার আবু ছিদ্দিকের পুত্র উমর হাকিমের সঙ্গে স্থানীয় নাছরপাড়ার মীর আহমদের মেয়ে জানুয়ারা আক্তার (২০) পারিবারিকভাবে বিয়ের কথা পাকা হয়। নির্ধারিত দেন-মোহর দিতে না পারায় জানুয়ারাকে ধরে নিয়ে বিয়ে করে। এভাবে তাদের সংসার চলে আসছে। মাঝে-মধ্যে যৌতুকের জন্য ২ জনের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয় ও স্বামী স্ত্রীকে মারধর করত। এভাবে চলতে চলতে জানোয়ারা ৪ মাসের অন্তস্বত্বা হয়ে পড়ে। গত ২১মার্চ রাতে দু‘জনার মধ্যে এই ধরনের বিষয় নিয়ে কথা কাটাকাটি হলে স্বামী ক্ষুদ্ধ হয়ে স্ত্রীকে বেদম প্রহার করে। এতে গর্ভবর্তী জানুয়ারার রক্ত ক্ষরণ শুরু হয়। মেয়ের পরিবারের লোকজন খবর পেয়ে উদ্ধার করতে গেলে স্বামীর বাঁধার মুখে যেতে পারেনি। শেষ পর্যন্ত পুলিশের সহায়তায় মহিলাকে উদ্ধার করে বাড়িতে নিয়ে যায়। ২৩মার্চ সকালে চিকিৎসার জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নিয়ে যায়। উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে চমেক হাসপাতালে রেফার করা হলে যাওয়ার সময় রামু এলাকায় পৌঁছলে দুপুর দেড়টারদিকে জানুয়ারা মৃত্যু বরণ করেন। স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদের প্যানেল চেয়ারম্যান জাহেদ হোছাইন মেম্বার জানুয়ারার মৃত্যুর বিষয়টি নিশ্চিত করেন। এই ব্যাপারে মোবাইল ফোন বন্ধ থাকায় অভিযুক্ত স্বামীর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তার বড় ভাই তালেব আলী বলেন আমার ছোট ভাই ও স্ত্রীর মধ্যে ছোট-খাট বিষয় নিয়ে মত-বিরোধ, কথা কাটাকাটি ও মারধরের মতো ঘটনা ঘটে। তবে পুলিশী সহায়তায় তাকে স্বাভাবিক উদ্ধার করে বাপের বাড়ি নিয়ে যায়। বিষয়টি সমাধানের জন্য মেয়ের বাবার সঙ্গে সমঝোতা করার চেষ্টা করি। কিন্তু মেয়ের বাবা বিয়ে ভেঙ্গে দেওয়ার পক্ষে মত দিয়ে মেয়ের গর্ভে থাকা সন্তান নষ্ট করতে গিয়েই রক্ত ক্ষরণে চিকিৎসা নিতে যাওয়ার পথে মার া যায়। তবে রাত সাড়ে ৮টায় এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত নিহত মহিলার লাশ পোস্ট মর্টেমের জন্য লাশ সদর হাসপাতাল মর্গে রয়েছে। এই ঘটনায় স্থানীয় জনসাধারণের মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হয়েছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।