১৮ জুলাই, ২০২৪ | ৩ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ১১ মহর্‌রম, ১৪৪৬


শিরোনাম
  ●  কলেজছাত্র মুরাদ হত্যা মামলার আসামি রহিম কারাগারে   ●  আন্দোলনের নামে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির প্রতিবাদে কক্সবাজার ছাত্রলীগের সমাবেশ   ●  স্বেচ্ছাসেবী কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা প্রদান    ●  চতুর্থবারের মতো শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট নির্বাচিত হলেন রোবায়েত   ●  সেন্টমার্টিনে ২ বিজিপি সদস্যসহ ৩৩ রোহিঙ্গা বোঝাই ট্রলার   ●  উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২   ●  উখিয়ায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি; কাঁচা ঘরবাড়ি, গ্রামীণ সড়ক লন্ডভন্ড   ●  উখিয়ায় কৃষি বিভাগের প্রণোদনা পেলেন ১৮০০ কৃষক /কৃষাণী   ●  আরসার জোন ও কিলিংগ্রুপ কমান্ডার আটক ৩   ●  পটিয়া প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত

চকরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সাথে সহকারীর বাকবিতন্ডা, থানায় জিডি

নিজস্ব প্রতিনিধি, চকরিয়া: চকরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তার সাথে উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তার মধ্যে বাকবিতন্ডার ঘটনায় চকরিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি করেছেন বলে জানা গেছে। গতকাল সকালে কৃষি অফিসে এ ঘটনা ঘটে।
জানাগেছে, চকরিয়া উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মোহাম্মদ আতিক উল্লার নেতৃত্বে বিভিন্ন ইউনিয়নে কৃষদের নিয়ে মাঠ দিবস পালন করা হচ্ছে। এ ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি পালাকাটায় কৃষকদের নিয়ে মাঠ দিবস পালন করা হয়েছে। উক্ত এলাকার দায়িত্বরত সহকারী কৃষি কর্মকর্তা নজরুল ইসলাম তার সংগঠন ডিপ্লোমা কৃষিবিদ ইউনিষ্টিটিউশন বাংলাদেশ’র চকরিয়া উপজেলা শাখার নেতৃবৃন্দকে অভিযোগ করেন, কৃষকদের জন্য নাস্তাসহ সার্বিক ব্যয় ১০ হাজার টাকা বরাদ্ধ থাকলেও তার এলাকায় নামে মাত্র ৩ হাজার টাকা প্রদান করেন ও চরম দুর্ব্যবহার করেন। এতে উপস্থিত কৃষকদের সকলের নাস্তা ও বসার চেয়ারের ব্যবস্থা করা সম্ভব হয়নি। এ অভিযোগের প্রেক্ষিতে সংগঠনের যুগ্মসাধারণ সম্পাদক তসলিম আলম মুন্না কৃষি কর্মকর্তার নিকট বিষয়টি জানতে চাইলে, তিনি ক্ষিপ্ত হয়ে তাকে গালিগাল করেন এবং তার দায়িত্বরত এলাকা থেকে ডেমুশিয়ায় বদলী করেন। এতেও শান্ত না হয়ে ফুঁসে বসেন কৃষি কর্মকর্তা। এরই ধারাবাহিকতায় গতকাল ২৩ মে সকালে তাসনিম আলম মুন্নাকে তার সাবেক এলাকা কাকারার কৃষকদের ধানের প্রতিবেদন চান। ওই সময় মুন্না উপজেলা কৃষি কর্মকর্তাকে বলেন, আমাকে একদিন সময় দিতে হবে। তার কোন কথা কর্ণপাত না করে কৃষি কর্মকর্তা তাকে ধাক্কা দিয়ে অফিস থেকে বের করে দেয়ার চেষ্টা করলে উপসহকারী মুন্না প্রতিবাদ জানান। একপর্যায়ে তর্কাতকি সৃষ্টি হয়। হাতা হাতি হওয়ার মুহুর্তে অফিসের অন্যান্য কর্মচারীরা এসে উভয় পক্ষকে বারণ করেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা ঘটনার বিষয়টি নিশ্চিত করে বলেন, এ বিষয়ে তিনি চকরিয়া থানায় একটি সাধারণ ডায়েরী রজু করেছেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।