২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৯ মাঘ, ১৪২৯ | ১০ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে শহর জামায়াতের আলোচনা সভা

11076129_666270256835525_387927111_n
২৬ শে মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উপলক্ষ্যে আলোচনা সভা আয়োজন করে জামায়াতে ইসলামী কক্সবাজার শহর। ২৬ মার্চ বৃহস্পতিবার বিকেলে কক্সবাজার শহর জামায়াতের আমির অধ্যাপক আবুতাহের চৌধুরীরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় আরো উপস্থিত ছিলেন, জেলা জামায়াতের অফিস সেক্রেটারী জাহেদুল ইসলাম, ছাত্রশিবির জেলা সেক্রেটারী আজিজুল হক, শহর জামায়াত কর্মপরিষদ সদস্য মোহাম্মদ মহসিন, জামায়াত নেতা আব্দুর রশিদ, কামরুল হাসান, মোজাহের আহম্মদ প্রমূখ।

আলোচনা সভায় শহর আমির আবুতাহের চৌধুরী বলেন, স্বাধীনতার ৪৫ বছর পার হলেও বাংলাদেশের মানুষ তার মৌলিক অধিকার ফিরে পায়নি। স্বাধীন বাংলাদেশের যে ঐক্যের চেতনাকে ধারণ করে পথ চলার কথা ছিল, স্বার্থান্বেষী মহলের কারণে তা সম্ভব হয়ে ওঠেনি। অনৈক্য ছড়িয়ে বাংলাদেশকে ব্যর্থ রাষ্ট্রে পরিণত করার ষড়যন্ত্র চলছে। আওয়ামী লীগ আজ স্বাধীন বাংলাদেশে একাত্তরের পাকিস্তানী স্বৈরাচারের ভূমিকায়ই অবতীর্ণ হয়েছে। পাকিস্তানী অপশাসকদের মতই একইভাবে স্বৈরাচারী কায়দায় বর্তমান অবৈধ সরকার অস্ত্রের মুখে জনগণের মৌলিক অধিকার কেড়ে নেয়ার চেষ্টা করছে। অপশাসন, দুর্নীতির বিরুদ্ধে কেউ কথা বললেই তাকে গুম, খুন, গ্রেফতার হতে হচ্ছে। একের পর এক গণমাধ্যম বন্ধ করে দেয়ার পাশাপাশি রাজনৈতিক দলগুলোকে গণতান্ত্রিক অধিকার প্রয়োগের কোন সুযোগই দেয়া হচ্ছে না। অপশাসনের কবলে দেশের সার্বভৌমত্বই আজ হুমকির মুখে পড়েছে। এই অবস্থা থেকে উত্তরণে গণআন্দোলনের কোন বিকল্প নেই। আন্দোলনের মাধ্যমেই জনগণের অধিকার নিশ্চিত করতে হবে।

অন্যান্য আলোচক বৃন্দ বলেন, প্রধানমন্ত্রী স্বাধীনতা ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা বললেও, তিনি ও তার দল সা¤্রাজ্যবাদের ক্রীড়ানক হিসেবেই কাজ করছেন। দেশজ সংস্কৃতির বিকাশে বর্তমান সরকারের কোন উদ্যোগ না থাকলেও সা¤্রাজ্যবাদী শক্তির সাংস্কৃতিক আগ্রাসনের পক্ষেই তারা কাজ করছেন। যে চেতনাকে বুকে ধারণ করে একাত্তরে লক্ষ লক্ষ মানুষ শহীদ হয়েছিলেন, দেশের জনগণ সেই চেতনা ধারণ করলেও রাষ্ট্র তা থেকে যোজন যোজন মাইল দূরে অবস্থান করছে। সরকারের পৃষ্ঠপোষকতায়ই ভারতীয় সাংস্কৃতিক আগ্রাসন ক্রমেই বাড়ছে। এই অবস্থায় জনগণকে আরো সোচ্চার হতে হবে। তাই আজ গনতন্ত্র ও মানুষের মৌলিক অধিকার পুনরুদ্ধারই হোক স্বাধীনতা দিবসের মূল আঙ্গীকার।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।