৩০ সেপ্টেম্বর, ২০২২ | ১৫ আশ্বিন, ১৪২৯ | ৩ রবিউল আউয়াল, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  কক্সবাজারে ১৮ পূজা মণ্ডপ ঝুঁকিপূর্ণ   ●  পর্যটন নগরী কক্সবাজারকে প্রকৃতিবান্ধব পর্যটনে রূপ দিতে হবে- এমপি জাফর   ●  সংগঠনকে সুসংহত করতে ইখলাসপূর্ণ তৎপরতা চালিয়ে যেতে হবে   ●  পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. নজিবুল ইসলামের উদ্যোগে বর্ণিল ‘শারদ সন্ধ্যা’র আয়োজন   ●  মেয়র এলায়েন্স ফর হেলদী সিটি’র নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানকে পৌরসভা সার্ভিস এসোসিয়েশনের সংবর্ধনা   ●  জেলা পরিষদ নির্বাচনে শেখ হাসিনা মনোনীত প্রার্থীকে বিজয়ী করতে ঐক্যবদ্ধ ভাবে কাজ করবে আওয়ামীলীগ   ●  দেড় শতাধিক ব্যবসা প্রতিষ্ঠান উচ্ছেদ, ক্ষতির দাবি ৫ কোটি টাকার   ●  রুমখাঁ মাদ্রাসার অভিভাবক সদস্য পদে সকলের দোয়া চেয়েছেন ছলিম উল্লাহ বাহাদুর   ●  সাবেক এমপি এড. খালেকুজ্জামান ছিলেন দল মত নির্বিশেষে সকলের কাছে জনপ্রিয় নেতা   ●  বাংলাদেশের মানুষ বঙ্গবন্ধুর প্রতিচ্ছবি দেখতে পায় শেখ হাসিনার মধ্যে- এমপি জাফর

‘সীমান্তে বসবাসকারী লোকজনের নিরাপত্তার বিষয়টিকে গুরুত্বসহকারে দেখছি’- জেলা প্রশাসক

বিশেষ প্রতিবেদক:

সীমান্ত এলাকা পরিদর্শনে গেছেন বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভিন তিবরীজি,  পুলিশ সুপার মো. তারিকুল ইসলাম সহ প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। তাঁরা গতকাল সোমবার সকাল ১০ টার দিকে উখিয়ার কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে পৌঁছেন। যেখানে সীমান্তের নিকটবর্তী ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রের শিক্ষার্থীরা এসএসসি পরীক্ষা দিচ্ছেন। কেন্দ্রটি পরিদর্শন শেষে বান্দরবানের জেলা প্রশাসক ইয়াছমিন পারভিন তিবরীজি জানান, মিয়ানমারের অভ্যন্তরের ঘটনার প্রেক্ষিতে ঘুমধুম উচ্চ বিদ্যালয় কেন্দ্রটি ঝুঁকিপূর্ণ। ফলে কেন্দ্রটি উখিয়ার কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয়ে হস্তান্তর করা হয়েছে। এ কেন্দ্রে সব পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। তিনি বলেন, সীমান্তে বসবাসকারী লোকজনের নিরাপত্তার বিষয়টিকে গুরুত্বসহকারে দেখছি। সীমান্তের কাছাকাছি যারা বসবাস করছে তাদের নিরাপত্তার স্বার্থে অন্যত্র সরিয়ে নেওয়ারও প্রক্রিয়া চলমান। এটা সময় সাপেক্ষ বিষয়। তবে কিভাবে আমাদের সীমান্তবর্তী লোকজনদের নিরাপদে রাখা যায় সে বিষয়ে আমরা  ব্যবস্থা নেবো।শিক্ষার্থীরা শান্তিপূর্ণ পরিবেশে পরীক্ষা দিচ্ছে। একই সঙ্গে সীমান্তের নিকটে ঝুঁকিপূর্ণদের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। প্রয়োজনে এসব এলাকার মানুষকে সরিয়ে নেয়ার প্রস্তুতিও রয়েছে। জেলা প্রশাসক জানান, সীমান্ত পরিস্থিতি সার্বিক পর্যাবেক্ষণ করা হচ্ছে। রোববার নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলা প্রশাসনের আইন শৃঙ্খলা রক্ষায় জড়িত সকল প্রতিনিধি, জনপ্রতিনিধিদের নিয়ে প্রস্তুতি সভা করেছে। সভার সিদ্ধান্ত মতে ঝুঁকিপূর্ণদের তালিকা প্রস্তুত রয়েছে।
বান্দরবানের পুলিশ সুপার মো. তারিকুল ইসলাম জানান, সাধারণ নাগরিকের নিরাপত্তা দিতে তারা কাজ করে যাচ্ছেন। শুক্রবার এপারে মর্টার শেল এসে হতাহতের পর একটু উদ্বেগ থাকলেও পুলিশের পক্ষে প্রশাসনের নিদের্শনা মতে কাজ করার প্রস্তুতি রয়েছে।

উখিয়ার কুতুপালং উচ্চ বিদ্যালয় থেকে বের হয়ে প্রশাসনের কর্মকর্তারা ১২ টার দিকে পৌঁছেন ঘুমধুম প্রাথমিক বিদ্যালয়ে। ওখানে শিক্ষক, শিক্ষার্থীদের সাথে আলাপ করেন তাঁরা। এরপর ঘুমধুম পুলিশ ফাঁড়িতে যান।

গত মধ্য আগস্ট থেকে নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার ঘুমধুম ইউনিয়নের তুমব্রু, কোনার পাড়া, উত্তর পাড়া ও বাইশফাঁড়িসহ বিভিন্ন সীমান্তে মিয়ানমার সেনাবাহিনীর সঙ্গে বিদ্রোহী গোষ্টির মধ্যে গোলাগুলি শুরু হয়। যা এখন ছড়িয়ে পড়েছে পুরো নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার মিয়ানমার সীমান্ত জুড়ে। প্রায় প্রতিদিনই চলছে দিনে ও রাতে থেমে থেমে গোলাবারুদ বর্ষণ। মাঝে মধ্যে হেলিকপ্টার ও ফাইটিং জেট বিমান থেকে ছোড়া হচ্ছে গোলাবারুদ। শুক্রবার রাতে ঘুমধুমের কোনার পাড়া সীমান্তের শূণ্যরেখার আশ্রয় ক্যাম্প ও তুমব্রু সীমারোক আঘাত হানে মিয়ানমারের ছোড়া ৫ টি মর্টার শেল। এতে মর্টার শেল বিস্ফোরণে এক রোহিঙ্গা কিশোরের মৃত্যু এবং পাঁচজন আহত হয়েছে। ওই দিন দুপুরে ঘুমধুমের বাইশফাঁড়ি সীমান্তের শূণ্যরেখায় মাইন বিস্ফোরণে আহত হয়ে একটি পা হারায় স্থানীয় তঞ্চঙ্গা সম্প্রদায়ের এক যুবক। তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে চিকিৎসাধিন। এর আগেও মিয়ানমারের ছোড়া দুইটি মর্টার শেল ঘুমধুমের উত্তর পাড়া সীমান্তে আঘাত হানলেও অবিস্ফোরিত হওয়ায় ক্ষয়ক্ষতি হয়নি।এ ধরণের ভীতিকর পরিস্থিতিতে পরিস্থিতিতে ঘুমধুম সীমান্তের ৩৫ টি স্থানীয় পরিবার অন্যত্রে নিরাপদে আশ্রয় নিয়েছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।