২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৯ মাঘ, ১৪২৯ | ১০ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

সালাহ উদ্দিন আহমেদ কোথায়?

দুইদিন থেকে নিখোঁজ বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমেদ। পরিবারের দাবি, গোয়েন্দা পুলিশ পরিচয়ে রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে সালাহ ‍উদ্দিনকে তুলে নেওয়া হয়েছে। কিন্তু আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী জানিয়েছে, ‘সালাহ উদ্দিনকে তারা নেয়নি।’
এনিয়ে রাজনীতি সচেতন মহলে চলছে নানা গুঞ্জন। কেউ বলছেন, সালাহ উদ্দিন কি তাহলে ইলিয়াস আলী কিংবা চৌধুরী আলমের ভাগ্য বরণ করতে যাচ্ছেন, নাকি হালের মাহমুদুর রহমান মান্নার মতো আটকের পর সুবিধাজনক কোনো সময় পুলিশ তাকে প্রকাশ্যে আনবে? তবে সে যাই হউক, এ ঘটনায় পরিবারের সদস্যরা চরম উদ্বেগ আর উৎকণ্ঠায় দিন কাটাচ্ছেন।
সালাহ উদ্দিনের স্ত্রী হাসিনা আহমদ ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এক দিন আগে রাজধানীর উত্তরার একটি বাসা থেকে তাঁকে তুলে নেওয়া হয়। কিন্তু পুলিশ আটকের খবর স্বীকার না করায় এখন আমরা উৎকণ্ঠায় আছি।
সর্বশেষ গত মঙ্গলবার রাত ১০টার পর সালাহ উদ্দিন আহমদ মুঠোফোনে স্ত্রী হাসিনা আহমদের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করেন বলে জানা গেছে। কিন্তু কোনো কথা হয়নি।
জানতে চাইলে বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য লে. জেনারেল (অব.) মাহবুবুর রহমান ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘সালাহ উদ্দিন আহমেদ একজন রাজনীতিবিদ। তিনি নিখোঁজ না গ্রেপ্তার এটা তো সরকারকেই স্পষ্ট করতে হবে। কারণ দেশের প্রত্যেকটি মানুষের নিরাপত্তা দেয়ার দায়িত্ব সরকারের। বিষয়টি নিয়ে ধোঁয়াশা সৃষ্টি হয়েছে। এখন পার্লামেন্ট চলছে। পার্লামেন্টে বিষয়টি নিয়ে আলোচনা করা উচিত। কারণ এর আগে চৌধুরী আলম ও ইলিয়াস আলীকে আমরা পাইনি। এসব তো কোনো ভাল দৃষ্টান্ত নয়।’
জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (মিডিয়া) ইফতেখারুল আলম ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘সালাহ উদ্দিনকে আটকের কোনো খবর আমাদের হাতে নেই। তবে তিনি কোথায় আছেন তাও জানেন না তিনি।’
র‌্যাবের সহকারী পরিচালক (মিডিয়া) মেজর মাকসুদুল আলমের কাছে এ বিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকাটাইমস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি বলেন, ‘সালাহ উদ্দিনকে আটকের বিষয়ে আমরা কিছু জানি না।’
বিএনপির কেন্দ্রীয় দপ্তরের দায়িত্বপ্রাপ্ত যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী গ্রেপ্তার হওয়ার পর সালাহ উদ্দিন আহমদ দলের মুখপাত্র হিসেবে দায়িত্ব পালন করছিলেন। অজ্ঞাত স্থান থেকে বিএনপির নেতৃত্বাধীন ২০-দলীয় জোট এবং দলের পক্ষ থেকে তিনি কর্মসূচি ঘোষণা ও বিবৃতি দিয়ে আসছিলেন।
বিজ্ঞপ্তিতে সালাহ উদ্দিন আহমদসহ গ্রেপ্তার অপর দুজনের মুক্তি এবং বিরোধী রাজনৈতিক নেতাদের এভাবে গোপনে তুলে নেওয়ার মতো বেআইনি ও স্বৈরাচারী কার্যক্রম বন্ধ করার জন্য সরকারের প্রতি দাবি জানানো হয়।
এর আগে সালাহ উদ্দিন আহমদের বাসার কেয়ারটেকার ও দুজন গাড়িচালককে গ্রেপ্তার করে তিন দিন পর আদালতে হাজির করা হয়।
মহিউদ্দিন মাহী, ঢাকাইমস

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।