২৩ মে, ২০২৪ | ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৪ জিলকদ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সাঁড়াশি অভিযানে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার    ●  নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলার প্রথম নির্বাচনে সহিংসতায় যুবক খুন; বসতবাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ    ●  এভারকেয়ার হসপিটালের শিশু হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. তাহেরা নাজরীন এখন কক্সবাজারে   ●  কালেক্টরেট চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী সমিতির সভাপতি আব্দুল হক, সম্পাদক নাজমুল   ●  ক্যাম্পের বাইরে সেমিনারে অংশ নিয়ে আটক ৩২ রোহিঙ্গা   ●  চেয়ারম্যান প্রার্থী সামসুল আলমের অভিযোগ;  ‘আমার কর্মীদের হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে’   ●  নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবকিছু কঠোর থাকবে, অনিয়ম হলেই ৯৯৯ অভিযোগ করা যাবে   ●  উখিয়া -টেকনাফে শাসরুদ্ধকর অভিযানঃ  জি থ্রি রাইফেল, শুটারগান ও গুলিসহ গ্রেপ্তার ৫   ●  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হেড মাঝিকে  তুলে নিয়ে   গুলি করে হত্যা   ●  যুগান্তর কক্সবাজার প্রতিনিধি জসিমের পিতৃবিয়োগ

সাক্কুকে শপথ পড়ালেন প্রধানমন্ত্রী


শপথ নিলেন সম্প্রতি নির্বাচিত কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশনের (কুসিক) মেয়র মনিরুল হক সাক্কু। আজ বৃহস্পতিবার সকালে গণভবনে তাকে শপথ বাক্য পাঠ করান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

গত ৩০ মার্চ কুমিল্লা সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে ৬৮ হাজার ৭৯৫ ভোট পেয়ে ফের মেয়র নির্বাচিত হন বিএনপির মোননীত প্রার্থী মনিরুল হক সাক্কু। ভোটে তিনি আওয়ামী লীগের প্রার্থী আঞ্জুম সুলতানা সীমাকে পরাজিত করেন।

এর আগে ২০১২ সালের ৫ জানুয়ারি কুমিল্লা সিটির প্রথম ভোট হয়। সেখানেও এবারের সরকার দলীয় প্রার্থী সীমার বাবা ও আওয়ামী লীগের প্রার্থী অধ্যক্ষ আফজল খানকে পরাজিত করেন।

একই দিন শপথ নেন কুমিল্লা সিটির সংরক্ষিত ও ওয়ার্ড কাউন্সিলররা। তাদের শপথ পড়ান স্থানীয় সরকার পল্লী উন্নয়ন ও সমবায়মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন।

গত মাসের ২০ এপ্রিল সাক্কুর মেয়র নির্বাচিত হওয়ার গেজেট প্রকাশ করে স্থানীয় সরকার বিভাগকে ব্যবস্থা নেয়ার চিঠি দেওয়া হয়। গেজেট প্রকাশের এক মাসের মধ্যে শপথ নেওয়ার বিধান রয়েছে। সেই অনুসারে আজ বৃহস্পতিবার শপথ নেন তিনি।

সাক্কুকে নিয়ে দেশের মোট ১১টি সিটি করপোরেশনে মেয়র হিসেবে বিএনপি’র সংখ্যা হবে ৬। সাক্কু ছাড়া অন্যরা হলেন গাজীপুরে এম এ মান্নান, রাজশাহীতে মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল, খুলনায় মনিরুজ্জামান মনি, বরিশালে আহসান হাবিব কামাল এবং সিলেটে আরিফুল হক।

এই মেয়ররা ২০১৩ সালে নির্বাচিত হবার পর দায়িত্ব পালনে নানাভাবে ঝামেলায় পড়েছেন সন্ত্রাস ও নাশকতার মামলার কারণে। মামলায় অভিযোগপত্র দেয়ার পর একাধিক মেয়রকে একাধিকবার বরখাস্ত করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়। উচ্চ আদালত একাধিকবার সেই আদেশ স্থগিতও করেছেন

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।