১৮ মে, ২০২৪ | ৪ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ৯ জিলকদ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  ক্যাম্পের বাইরে সেমিনারে অংশ নিয়ে আটক ৩২ রোহিঙ্গা   ●  চেয়ারম্যান প্রার্থী সামসুল আলমের অভিযোগ;  ‘আমার কর্মীদের হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে’   ●  নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবকিছু কঠোর থাকবে, অনিয়ম হলেই ৯৯৯ অভিযোগ করা যাবে   ●  উখিয়া -টেকনাফে শাসরুদ্ধকর অভিযানঃ  জি থ্রি রাইফেল, শুটারগান ও গুলিসহ গ্রেপ্তার ৫   ●  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হেড মাঝিকে  তুলে নিয়ে   গুলি করে হত্যা   ●  যুগান্তর কক্সবাজার প্রতিনিধি জসিমের পিতৃবিয়োগ   ●  জোয়ারিয়ানালায় কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় আহত রামু কলেজের অফিস সহায়ক   ●  রামুর বিভিন্ন পয়েন্ট দিয়ে পুলিশের সহযোগিতায়  আসছে চোরাই গরু   ●  রামুতে ওসির আশকারায় এসআই আল আমিনের নেতৃত্বে ‘সিভিল টিম’   ●  ড. সজীবের সমর্থনে বারবাকিয়ায় পথসভা

কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন ও প্রেস ক্লাবের বিবৃতি

সাংবাদিক তোফায়েল সম্পর্কে এমপি কমল এর বক্তব্যের নিন্দা

নিজস্ব প্রতিনিধি:
কক্সবাজারে কর্মরত সিনিয়র সাংবাদিক এবং দৈনিক কালের কন্ঠ’র বিশেষ প্রতিনিধি তোফায়েল আহমদের বিরুদ্ধে সামাজিক যোগযোগ মাধ্যমে কক্সবাজার সংসদীয় আসন-৩ কক্সবাজার সদর-রামু আসনের সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলের এক ভিডিও বক্তব্য কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন ও কক্সবাজার প্রেস ক্লাবের দৃষ্টিগোচর হয়েছে। একজন সিনিয়র সাংবাদিককে নিয়ে এমপি কমলের বক্তব্য ব্যক্তিগত আক্রোশমূলক। এমপির এই ধরণের বক্তব্য আমাদের হতবাক করেছে। আমরা এর তীব্র প্রতিবাদ ও নিন্দা জানাচ্ছি।
একজন কর্মরত গণমাধ্যম কর্মীর পরিবেশিত কোন সংবাদে যদি কোন ব্যক্তি ক্ষুব্ধ হয়ে থাকেন  তিনি প্রতিবাদ করতে পারেন। আইনের আশ্রয় নেওয়ার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু তা না করে সরাসরি ওই গণমাধ্যম কর্মীর উপর ব্যক্তিগত এবং আক্রোশমূলক বক্তব্য দিয়ে তা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রচারের ব্যবস্থা করা কোনভাবেই গ্রহণযোগ্য নয়। ক্ষমতাসীন দলের আইন প্রণেতা হয়ে গণমাধ্যম কর্মীর বিরুদ্ধে এরকম আপত্তিকর বক্তব্য প্রত্যাহারের আহ্বান জানাচ্ছি।
কালের কন্ঠ পত্রিকায় প্রকাশিত যে নিঊজের জন্য সাংবাদিক তোফায়েল আহমদকে টার্গেট করে উদ্দেশ্যমূলক ভাবে সংসদ সদস্য বিষোদগার করেছেন বাস্তবে সেই নিউজ করেছেন পত্রিকাটির ঢাকা অফিসের সিনিয়র সাংবাদিক তৈমুর ফারুক তুষার। গত ১৯ আক্টোবর কালের কন্ঠের প্রথম পৃষ্ঠায় “৯ জেলা পরিষদ- আওয়ামী লীগের হার এমপিদের বিরোধিতায়” শীর্ষক নিউজে প্রতিবেদকের নাম উল্লেখ রয়েছে। কিন্তু তা সত্বেও কক্সবাজারের সাংবাদিক তোফায়েল আহমদকে উক্ত সংবাদের জন্য অভিযুক্ত করে সংসদ সদস্য কমল কেন এবং কি উদ্দেশ্যে বিষোদগারে নেমেছেন তা আমাদের বোধগম্য নয়।
সাংবাদিক তোফায়েল আহমদের প্রয়াত বাবা উখিয়া উপজেলার হলদিয়া পালং ইউনিয়নের একজন ত্যাগী আওয়ামী লীগ নেতা এবং মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ছিলেন। তোফায়েল আহমদ ছাত্রজীবনে ছাত্রলীগের একনিষ্ট কর্মী ছিলেন। ১৯৭২ সালে উখিয়ার মরিচ্যা পালং জুনিয়র হাই স্কুলে তিনি ছাত্রলীগের নির্বাচিত এজিএস ছিলেন। আশি দশকে কক্সবাজার জেলা ছাত্রলীগের তথ্য ও প্রচার সম্পাদকও ছিলেন।
তোফায়েল আহমদ দীর্ঘ ৪৫ বছর কক্সবাজারে সাংবাদিকতায় জড়িত রয়েছেন। জাতীয়, অঞ্চালিক ও স্থানীয় সংবাদপত্রের পাশাপাশি কাজ করে যাচ্ছেন আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের সাথে। তিনি আজীবন অসঙ্গতির বিরুদ্ধে লেখালেখির মাধ্যমে সুনাম অর্জন করেছেন।
সুতরাং একজন স্বনামধন্য সাংবাদিকের বিরুদ্ধে এমপি কমল যে নোংরা ভাষায় কথা বলেছেন তা দু:খজনক। আমাদের বক্তব্য, কেউ দেশের প্রচলিত আইনের বিরুদ্ধে নয়। কেউ যদি দুর্নীতি এবং অন্যায় করে থাকেন আইনের আশ্রয় নিতে পারেন, তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নিতে পারে। আমরা সংসদ সদস্য সাইমুম সরওয়ার কমলের এমন বক্তব্যের নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সঙ্গে তাঁর এই বক্তব্য প্রত্যাহারের দাবি জানাচ্ছি।
কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন ও কক্সবাজার প্রেস ক্লাব সভাপতি মোহাম্মদ আবু তাহের ও সাধারণ সম্পাদক
মো. মুজিবুল ইসলাম এবং কক্সবাজার সাংবাদিক ইউনিয়ন সাধারণ সম্পাদক জাহেদ সরওয়ার সোহেল যৌথ বিবৃতিতে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।