২৮ নভেম্বর, ২০২১ | ১৩ অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ | ২২ রবিউস সানি, ১৪৪৩


শিরোনাম
  ●  চিটাগাং চেম্বার ও কক্সবাজার চেম্বারের সমঝোতা স্মারক   ●  আবেগ; মো. আলী আশরাফ মোল্লা   ●  কক্সবাজারে শ্রীলঙ্কার আবহ এনেছে ‌’সী পার্ল শ্রীলঙ্কান ফুড ফেস্টিভ্যাল’ : শ্রীলঙ্কান হাইকমিশনার   ●  বাংলাদেশ ফার্টিলাইজার এসোসিয়েশন কেন্দ্রীয় পরিচালনা পর্ষদের পরিচালক নির্বাচিত হলেন মোহাম্মদ নুরুল আলম   ●  সাবেক ছাত্রনেতা সাংবাদিক ফরহাদ ইকবাল এর জন্মদিন আজ   ●  উখিয়ার পালংখালী ইউপির তথ্য সেবা উদ্যোক্তা ইয়াবাসহ আটক   ●  শোষণ নয় সেবাই একমাত্র আমার লক্ষ্য : মহিলা কাউন্সিলর প্রার্থী রুবিনা আক্তার   ●  জেল থেকে ভিডিও কলে ভোটের প্রচার!   ●  কক্সবাজার দোকান মালিক সমিতি ফেডারেশনের বার্ষিক সাধারণ সভা সম্পন্ন   ●  বেপরোয়া হয়ে উঠেছে ঝিলংজার ইউপি সদস্য নাছির উদ্দিন

রমজান ইবাদতের মাস

প্রেমময়ের সান্নিধ্য লাভের অবারিত সুযোগ নিয়ে আসে রমজান। এ মাসে খোদার রহমতের ফল্গুধারায় মুমিন-মুত্তাকির অন্তর সিক্ত হয়। মানবগ্রহে সাম্য, সম্প্রীতি, সহানুভূতি ও সহমর্মিতার ঐশী আবহ তৈরি করে সিয়াম। সিয়াম সাধনায় মাটির মানুষ পরিণত হন সোনার মানুষে। শত কর্মব্যস্ততার মাঝেও আপন প্রভুর সামনে সিজদাবনত হওয়ার, দোয়া, তাসবিহ-তাহলিল, তাওবা ইস্তিগফার করার সুযোগ তৈরি করে দেয়।

এ মাসে আল্লাহর কাছে সব রকমের ইবাদতের গুরুত্ব অনেক বেশি। হাদিসে এ মাসে ইবাদতের গুরুত্ব বর্ণিত হয়েছে এভাবে :

ক. এ মাসে একটি ওমরাহ করলে একটি হজ আদায়ের সওয়াব হয় এবং তা রাসূলুল্লাহ (সা.)-এর সঙ্গে হজ আদায়ের মর্যাদা রাখে। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘রমজান মাসে ওমরাহ করা আমার সঙ্গে হজ আদায় করার সমতুল্য’। [বুখারি : ১৮৬৩]।

খ. রমজানে ইবাদতে রাত জাগরণের ফজিলত বিশেষভাবে বর্ণিত হয়েছে। রাসূলুল্লাহ (সা.) বলেন, ‘যে ব্যক্তি ইমানের সঙ্গে নেকির প্রত্যাশায় রমজানের রাত জাগরণ করবে তার অতীতের গুনাহগুলো মাফ করে দেওয়া হবে।’ [বুখারি : ৩৭; মুসলিম : ৭৬০]।

গ. রমজানের শেষ দশকে রাসূলুল্লাহ (সা.) বিশেষভাবে ইবাদতে মনোনিবেশ করতেন। হজরত আয়েশা (রা.) থেকে বর্ণিত, তিনি বলেন, ‘রাসূলুল্লাহ (সা.) রমজানের শেষ দশকে বেশি বেশি ইবাদতে মনোনিবেশ করতেন, যতটা তিনি অন্য দিনগুলোতে করতেন না।’ [মুসলিম : ১১৭৫]।

ঘ. হজরত আয়েশা (রা.) থেকে আরও বর্ণিত হয়েছে, তিনি বলেন, ‘রমজানের শেষ দশক এলে রাসূলুল্লাহ (সা.) তার লুঙ্গি শক্ত করে বাঁধতেন এবং তিনি এর রাতগুলোতে নিজে জাগতেন আর পরিবারকেও জাগাতেন।’ [বুখারি : ২০২৪]।

ঙ. রাসূল (সা.) বলেন, ‘এটা ধৈর্যের মাস। আর ধৈর্যের প্রতিদান জান্নাত। এটা সমবেদনার মাস। এ মাসে মুমিনের রিজিক বৃদ্ধি করে দেওয়া হয়। যে ব্যক্তি তার অধীনের কাজের ভার লাঘব করবে, আল্লাহ তাকে ক্ষমা করবেন এবং জাহান্নাম থেকে মুক্তি দেবেন।’ [বায়হাকি]।

চ. প্রিয় নবি (সা.) বলেন, ‘হে লোকজন, এ মাসে চারটি জিনিসের ওপর খুব গুরুত্ব দাও এবং বেশি বেশি করে কর। ১. কালিমা তাইয়্যেবা-‘লা ইলাহা ইল্লাল্লাহু’। ২. ইস্তিগফার তথা ক্ষমা প্রার্থনা। ৩. জান্নাত চাওয়া। ৪. জাহান্নাম থেকে মুক্তি কামনা করা। [মেশকাত : ১/১৭৪, বায়হাকি, শুয়াবুল ইমান ৩/৩০৫]।

সুতরাং পবিত্র এ মাসটিতে সিয়াম পালনের পাশাপাশি সার্বক্ষণিক খোদার ধ্যানে নিমগ্ন থাকা, রাত জেগে ইবাদত-বন্দেগি করা, সিজদাবনত থাকা এবং যথাসাধ্য কুরআন তিলাওয়াত ও বুঝে বুঝে কুরআন পড়া সব মুসলমানের কর্তব্য। যাতে রাসূল (সা.)-এর আদর্শ অনুযায়ী রমজান মাস কাটাতে পারি এবং আল্লাহতায়ালার নিয়ামত ও হেদায়েত থেকে আমরা পূর্ণরূপে লাভবান হতে পারি। আল্লাহতায়ালা আমাদের তাওফিক দান করুন। আমিন।

লেখক : অধ্যক্ষ, দারুল উলুম ঢাকা, মিরপুর ১৩

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।