১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

যে ব্যাংকের সবাই ভিক্ষুক!

বিহারের মঙ্গলা ব্যাংকভিক্ষুকদের জন্য ভিক্ষুক দ্বারা পরিচালিত হচ্ছে ব্যাংক। আর এমন অভিনব ব্যাংকটি চালু হয়েছে ভারতের বিহারে। অদ্ভূত ব্যাংকটির উদ্যোক্তাও বিহারেরই গয়া জেলার একদল ভিক্ষুক।

মজার ব্যাপার হচ্ছে, ভিক্ষুক দ্বারা পরিচালিত এই ব্যাংকে টাকা রাখার জন্য কোনও প্যান কার্ড কিংবা ভোটার কার্ডের দরকার নেই। অ্যাকাউন্ট খোলার একটাই শর্ত। তা হচ্ছে, গ্রাহকদের ভিক্ষুক হতে হবে। এমন ভিক্ষুকদেরই বিপদের সময় আর্থিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে এই উদ্যোগ একদল ভিখারীর। খবর এবিপি আনন্দর।

এই ভিক্ষুকরা বছরের পর বছর ধরে বিহারের মা মঙ্গল-গৌরী মন্দিরের গেটের সামনে ভিক্ষা করে আসছেন। সেইসূত্রে এই ব্যাংকের নামও রেখেছেন মঙ্গলা ব্যাংক। মাত্র ছয় মাস আগে ব্যাংকটির জন্ম। ব্যাংক ম্যানেজার, কোষাধ্যক্ষ, সেক্রেটারি কেউই যথার্থ শিক্ষিত নন। প্রত্যেকেরই শিক্ষাগত যোগ্যতা খুবই কম। তাদের একটাই পরিচয়, তারা ভিক্ষুক।

ওই ব্যাংকের ম্যানেজার রাজ কুমার মাঝি জানিয়েছেন, ভিক্ষুকরা মিলেই এই ব্যাংকটি করেছেন। এখন সদস্য সংখ্যা ৪০। ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী প্রত্যেক ভিক্ষুককে সপ্তাহের প্রত্যেক মঙ্গলবার ২০ টাকা করে ব্যাঙ্কে জমা রাখতে হবে।

ব্যাংকের সেক্রেটারি মালতীদেবী জানান, দীন-দরিদ্র হওয়ায় সমাজে উপযুক্ত সম্মান থেকে বঞ্চিত হন তারা। তাই, ভিক্ষুকদের আশা পূরণ করতেই এই ব্যাংক তৈরির স্বপ্ন দেখেছিলেন তারা। মাঝির স্ত্রী নাগিনা দেবী এই ব্যাংকের কোষাধ্যক্ষ। তিনি যথেষ্ট শিক্ষিত না হলেও টাকা জমা রাখার কাজটি যথেষ্ট দায়িত্বের সঙ্গে পরিচালনা করেন তিনি।

জরুরী অবস্থায় এই ব্যাংকই তাদের বড় বল বলে জানিয়েছেন ব্যাংকের ম্যানেজার রাজকুমার মাঝি। যেমন গত মাসেই তার মেয়ে ও বোন আগুনে পুড়ে যাওয়ায়, চিকিৎসা বাবদ ব্যাংক তাকে ৮০০০ টাকা ধার দিয়েছিল। এজন্য তাকে সুদও দিতে হয়নি।

তবে ব্যাঙ্কের সেক্রেটারি মালতীদেবী জানান, সামনের মাস থেকে তারা ধারের সাপেক্ষে ২-৫ শতাংশ সুদ ধার্য করবেন। এতে সদস্যদের ধার শোধের চাপ বেশি থাকবে বলে মনে করছেন তিনি। অন্যদিকে, ব্যাংকে ভবিষ্যতের জন্য টাকা সঞ্চয় করতে পেরে খুশি বিহারের বাকি ভিক্ষুকরাও।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।