১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ ২ নারী সদস্যসহ ১৫ সদস্য নিয়ে পুনর্গঠন

বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদ ২ জন নারী সদস্যসহ ১৫ সদস্য নিয়ে পুনর্গঠন করা হয়েছে। একজন উপজাতীয় সম্প্রদায়ের চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে জেলার ৭টি উপজেলা ্থেকেই সমতাভিত্তিতে বাংগালি ও ১১টি উপজাতীয় সম্প্রদায়ের ২জন নারীসহ ১৫ সদস্য বিশিষ্ট বান্দরবান পার্বত্য জেলা পুনর্গঠনের সরকারি আদেশনামা জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান বরাবরে এসে পোঁছেছে আজ বুধবার বিকেল সাড়ে ৩টায়। রাষ্ট্রপতির আদেশক্রমে পার্বত্য মন্ত্রণালয় থেকে বান্দরবানসহ তিন পার্বত্য জেলা পরিষদ পুনর্গঠনের আদেশটি জারি হয়। পুনর্গঠিত বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদে ৩জন সাবেক পরিষদ সদস্যও রয়েছেন। এ প্রথমবারে চেয়ারমানসহ ১৫ সদস্য বিশিষ্ট পার্বত্য জেলা পরিষদে একজন উপজাতীয় এবং একজন বাংহালি সম্প্রদায় থেকে নারী সদস্য অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে।
জাতীয় সংসদে আইন পাশের পর ১৯৮৯ সালের ২৫জুন সরাসরি নির্বাচনের মাধ্যমে তিন পার্বত্য জেলায় গঠিত হয়েছিল ৩১ সদস্য বিশিষ্ট পার্বত্য জেলা স্থানীয় সরকার পরিষদ। ১৯৯৬ সালে আওয়ামীলীগ সরকার ক্ষমতায় আসার পর ৩১সদস্য বিশিষ্ট পার্বত্য জেলা স্থানীয় সরকার পরিষদ বাতিল করা হয়। ওই সময় সংশোধিত আইনের অনুবলে একজন উপজাতীয় চেয়ারম্যান ও ৪জন সদস্য নিয়ে চলে আসছিল পার্বত্য জেলা পরিষদের কার্যক্রম।
এদিকে পার্বত্য মন্ত্রণালয় থেকে আজ বুধবার বিকেলে জারি করা আদেশে বলা হয়,পরবর্তী নির্দেশ না দেয়া পর্যন্ত পুনর্গঠিত চেয়ারম্যানসহ ১৫ সদস্যের পার্বত্য জেলা পরিষদ যাবতীয় কার্যক্রম চালিয়ে যাবে। পার্বত্য মন্ত্রণালয় থেকে জারি করা আদেশ মতে পার্বত্য জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান হচ্ছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি ক্যশৈ হ্লা। সদস্যরা হলেন বর্তমান সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক কাজী মজিবুর রহমান,জেলা আওয়ামীলীগের যুগ্ন সম্পাদক লক্ষীপদ দাস,লামা উপজেলা থেকে জহিরুল ইসলাম,বর্তমান সদস্য ক্যসা প্রু মারমা ও কাঞ্চনজয় তনচংগ্যা,ক্যচিং চাক, ম্রাসা খিয়াং, ফিলিপ ত্রিপুরা, থোয়াই হ্লা মং মারমা, সাবেক সদস্য থোয়াই চাহ্লা মারমা,সিংইয় ম্রো ও জুয়েল বম,উপজাতীয় নারী সদস্যা তিংতিংম্যা এবং লামা উপজেলা থেকে বাংগালি নারী সদস্যা ফাতেমা পারুল।
বান্দদরবান পার্বত্য জেলা পরিষদগুলো মূলত ১৯৯৭ থেকেই ক্ষমতাসীন সরকারগুলো দলীয় নেতাদের নিয়ে পুনর্গঠন কিংবা মেয়াদকাল বৃদ্ধি করে আসছে। অষ্টমবারের মত মেয়াদবৃদ্ধি করা হয়েছে গতকাল বুধবার।
বান্দরবান পার্বত্য জেলা পরিষদে সরকারের ২৪টি বিভাগ এবং ৪টি বিষয় ন্যস্ত রয়েছে। জেলা পরিষদ চতুর্থ ও তৃতীয় শ্রেণীর কর্মচারী নিয়োগ,সরকারি সব ধরণের উন্নয়ন কর্মকান্ড,ভুমি,ত্রাণ ও খাদ্যপ্রকল্প গুলোর বাস্তবায়ন কাজ করে আসছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।