১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

বাইশারীতে হাতের নাগালে সর্বনাশা ইয়াবা

Yaba-2
মাদকের ভয়াল থাবায় বাইশারীর যুব সমাজ আজ ধ্বংসের পথে। যারা কখনো মাদক নামের সর্বনাশা ইয়াবার নাম শুনেনি তারাই আজ ইয়াবা সেবক এবং বিক্রেতা। মাদকের অবৈধ ব্যবসার কারণে বাইশারী-ঈদগড়ের অধিকাংশ যুবক তাদের সুখ, শান্তি, নিরাপত্তা, স্বাংস্কৃতি বিসর্জন দিয়েছে এবং প্রতিনিয়ত বাড়ছে দূর্ঘটনা। নেশার ছোবলে তিলে তিলে অনেক সম্ভাবনাময় যুবক তার জীবনকে করছে ক্ষত-বিক্ষত।
সুত্রে জানা যায়, প্রশাসনের চোখকে ফাঁকি দিয়ে কৌশলে ইয়াবা ব্যবসা করে যাচ্ছে বাইশারী-ঈদগড়ে এলাকার কয়েকজন চিহ্নিত ব্যবসায়ী। যার কারণে দুই ইউনিয়নে এখন ইয়াবা সহজলভ্য হয়ে পড়েছে। হাত বাড়ালেই পাওয়া যাচ্ছে মরণ ঘাতক ট্যবলেট ইয়াবা। ফলে দিন দিন আসক্ত হয়ে বিপদগামী হচ্ছে এলাকার তরুন যুবকরা।
ঈগড় ইউনিয়নের কয়েকজন প্রভাবশালী যুবক ইয়াবা এনে সিন্ডিকেটের মাধ্যমে খোলা বাজারে সরবরাহ করে নেশা আসক্তের সংখ্যা বাড়াচ্ছে। বলতে গেলে এখন ঈদগড় ও বাইশারী বাজারে ছন্দবেশে মুখোশধারী চিহ্নিত কিছু যুবক ইয়াবা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে বীরদর্পে। ইয়াবার এ সহজলভ্যতার কারণে এলাকা সচেতন মহল উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন।
নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক সিএনজি ও ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেলের সাথে সম্পৃক্ত একাধিক ব্যক্তি বলেন, সিএনজির মাধ্যমে রাতেই এসব মাদক দ্রব্য পাচার হয়। অনেকবার প্রশাসনকে বললেও প্রশাসন তাদের আটকের ব্যাপারে আগ্রহ নয়। আবার আটক করলেও টাকার বিনিময়ে ছেড়ে দেয়। তাই দিন দিন এসব মাদক দ্রব্য পাচারকারীরা অপ্রতিরোধ্য হয়ে উঠেছে। তাছাড়া ঈদগড় এলাকা থেকে একটি সিন্ডিকেট প্রতিনিয়ত বাইশারীতে ইয়াবা নিয়ে আসছে বলেও তিনি জানান। কতিপয় উঠতি যুবক প্রশাসনের নাকের ডগায় তা ব্যবহার সহ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।
জানা যায়, নাইক্ষ্যংছড়ি উপজেলার বাইশারী ও পাশ্ববর্তী রামু উপজেলার ঈদগড় ও গর্জনীয়া বড়বিলের কিছু উশৃঙ্খল যুবক প্রতিনিয়ত বাইশারী-ঈদগড়-ঈদগাঁও রোড় ও বাইশারী-গর্জনীয়া-নাইক্ষ্যংছড়ি-রামু সড়ক দিয়ে সোজা কক্সবাজারে মাদক প্রেরণ করে থাকেন। আবার প্রতিনিয়ত বাইশারী ও ঈদগড়ে প্রবেশ করছে সর্বনাসা মাদক নামের সেই ইয়াবাও। এসব মাদক দ্রব্য পাচারের অন্যতম হাতিয়ার হয়ে উঠছে কয়েকটি চিহ্নিত সিএনজি ও কয়েকটি ভাড়ায় চালিত মোটর সাইকেল। কয়েকজন উশৃঙ্খল যুবকের মাধ্যমে দিন দিন এসব মাদক দ্রব্য পাচার ও আমদানী বেড়েই চলছে। ঈদগড়ে বসে প্রভাবশালী কয়েকজন লোক সিন্ডিকেট দিয়ে চালিয়ে যাচ্ছে তাদের অবৈধ ব্যবসা।
রাতকেই মাদক দ্রব্য পাচারের অন্যতম পথ হিসাবে চিহ্নিত করে মাদকপাচারকারীরা। অন্য দিকে উপজাতীয় নারীদের সাথে বন্ধুত্ব করে প্রতিনিয়ত কৌশলে চালিয়ে যাচ্ছে মদ, গাজা থেকে শুরু করে ইয়াবার ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে নির্ভিগ্নে। বিগত দিনে এসব উপজাতীয় নারীরা প্রশাসনের হাতে আটক হলেও জামিনে বেরিয়ে এসে আবারো মাদক দ্রব্য পাচারে জড়িয়ে যাচ্ছে।
এসব মাদক পাচার ও সর্বনাশা ইয়াবার বিস্তারকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহনে প্রশাসনের হস্থপেক্ষপ কামনা করেছেন এলাকার সচেতন মহল।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।