১০ এপ্রিল, ২০২৪ | ২৭ চৈত্র, ১৪৩০ | ৩০ রমজান, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  আদালতে ফরেস্টার সাজ্জাদ হত্যার দায়স্বীকার সেই ডাম্পার চালক বাপ্পির   ●  ‘অভিযানে ক্ষুব্ধ, ফরেস্টার সাজ্জাদকে পূর্বপরিকল্পনায় হত্যা করা হয়’   ●  ফাঁসিয়াখালীতে পৃথক অভিযানে জবর দখল উচ্ছেদ, বালিবাহী ডাম্পার জব্দ   ●  অসহায়দের পাশে ‘রাবেয়া আলী ফাউন্ডেশন’   ●  ফরেস্টার সাজ্জাদ হত্যার মূল ঘাতক সেই বাপ্পী পুলিশের জালে   ●  ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন অব কক্সবাজার,ক্র্যাকের সভাপতি জসিম, সম্পাদক নিহাদ   ●  নতুন জামাতে রঙিন ১০০ শিশুর মুখ   ●  মহেশখালী উপজেলা আ’লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার পাশা চৌধুরীর মৃত্যুতে জেলা আ’লীগের শোক   ●  পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে যৌথ অভিযান   ●  নিরাপদ পেকুয়া গড়তে দলমত নির্বিশেষে সকলকে এক হতে হবে, ড. সজীব

বনবিভাগের পৃথক অভিযান:৩ শতাধিক পাখি ও ড্রেজার জব্দ

জাহেদ হাসান:

কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের উখিয়া রেঞ্জ পৃথক অভিযান চালিয়ে ৩ শতাধিক বক পাখি ও অবৈধভাবে বালু উত্তোলনে ব্যবহৃত ৩টি ড্রেজার মেশিন জব্দ করা হয়েছে। পরে পাচারের উদ্দেশ্যে মজুকৃত ৩ শতাধিক সাদা বক পাখি উদ্ধার করে প্রাকৃতিক পরিবেশে অবমুক্ত করা হয়েছে।

রবিবার (২৫ সেপ্টেম্বর) উখিয়ার রেঞ্জ কর্মকর্তা গাজী শফিউল আলমের নেতৃত্বে পালংখালীর মাসকারিয়া বিল ও মোছারখোলা এলাকায় এই অভিযান পরিচালনা করা হয়।

অভিযানে সার্বিক সহযোগীতায় ছিলেন,থাইংখালী বিট কর্মকর্তা রাকিব হোসাইন রাজু,ওয়ালাপালং বিট কর্মকর্তা বজলুর রশিদ, দোছড়ি, মোছারখোলা বিট কর্মকর্তা সহ সংশ্লিষ্ট এলাকার হেডম‍্যান, ভিলেজার,সিপিজির সদস‍্যগণ।

বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন উখিয়া রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ গাজী শফিউল আলম বলেন,গোপন সূত্রে জানতে পারি একটি পাখি শিকারী সিন্ডিকেট পাখি শিকার করে পাচার করে আসছিল এবং অন্যদিকে একটি বালুখেকো সিন্ডিকেট অবৈধভাবে বালু উত্তোলন করে আসছিল,এমন সংবাদের ভিত্তিতে অভিমান চালিয়ে ৩ শতাধিক বক পাখি ও ৩টি ড্রেজার জব্দ করা হয়।তবে অভিযানে কাউকে আটক করা সম্ভব হয়নি।জড়িতদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনতে অভিযান অব্যাহত থাকবে।এবিষয়ে আইনানুগ ব্যবস্হা গ্রহণ করা হবে।

কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের বিভাগীয় বন কর্মকর্তা মোঃ সারওয়ার আলম বলেন, কক্সবাজার দক্ষিণ বনবিভাগের আওতাধীন উখিয়াসহ যেসব এলাকায় যারা পশুপাখি শিকার করে ঐসব পাচারকারীদের চিহ্নিত করে আইনের আওতায় আনা হবে।জীববৈচিত্র্য রক্ষার পাশাপাশি সরকারি বনভূমি উদ্ধারে বনবিভাগ তৎপর রয়েছে। সরকারি জমিতে কেউ স্থাপনা নির্মাণ করলে তা উচ্ছেদ করা হবে এবং জবরদখলকারী,বনজ সম্পদ পাচারকারীদের বিরুদ্ধে অভিযান চালিয়ে বনভূমিসহ সরকারি সম্পদ রক্ষার্থে মুখ্য ভূমিকা পালন করবে। অভিযান চালিয়ে ভূমি জবরদখল এবং পাহাড়খেকোদের আইনের আওতায় আনা হবে। বন অপরাধ দমনে তথ্য দিয়ে সহযোগিতা করার আহ্বানও জানান তিনি।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।