১২ জুলাই, ২০২৪ | ২৮ আষাঢ়, ১৪৩১ | ৫ মহর্‌রম, ১৪৪৬


শিরোনাম
  ●  চতুর্থবারের মতো শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট নির্বাচিত হলেন রোবায়েত   ●  সেন্টমার্টিনে ২ বিজিপি সদস্যসহ ৩৩ রোহিঙ্গা বোঝাই ট্রলার   ●  উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২   ●  উখিয়ায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি; কাঁচা ঘরবাড়ি, গ্রামীণ সড়ক লন্ডভন্ড   ●  উখিয়ায় কৃষি বিভাগের প্রণোদনা পেলেন ১৮০০ কৃষক /কৃষাণী   ●  আরসার জোন ও কিলিংগ্রুপ কমান্ডার আটক ৩   ●  পটিয়া প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত   ●  উখিয়ায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান মেটাচ্ছে সবজির চাহিদা   ●  বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির থাইংখালী সার্ভিস সেন্টারের ৬ষ্ঠ পিএফটি মিটিং অনুষ্ঠিত   ●  পর্যটনের অ্যাম্বাসেডর চালকরা- এডিএসপি জসিম উদ্দিন চৌধুরী

প্রকাশিত সংবাদের বিষয়ে চেয়ারম্যান ইমরুল কায়েস চৌধুরী প্রতিবাদ

কক্সবাজার পৌরসভার নির্বাচনে নৌকা মার্কার প্রার্থী মাহাবুবুর রহমান চৌধুরীর নির্বাচনী প্রচারনার এক সভায় গত ৬ জুন আমি বক্তব্য প্রদান করি। ঐ সময় আমার দেয়া বক্তব্যেকে এডিট করে আমি বিগত কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচনে ৮টি কেন্দ্রে ভোট ডাকাতি করার কথা স্বীকার করেছি মর্মে দৈনিক যুগান্তর সহ বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে প্রিন্ট ও অনলাইন মিডিয়ায় মিথ্য সংবাদ প্রকাশিত হয়।

২০১৯ সালের কক্সবাজার সদর উপজেলা নির্বাচন ইভিএম এর মাধ্যমে হয়েছে। ইভিএম ভোটে ডাকাতিতো দূরের কথা, এই ভোটে চুল পরিমান কারচুপি করারও সুযোগ নেই। আর আমি নিজে কক্সবাজার সদর উপজেলা ভোটার নই। ঐ নির্বাচন চলাকালীন সময়ে আমি চেয়ারম্যান ছিলাম না। এমনকি আমার দলীয় কোন পদ-পদবীও ছিলো না। ফলে কক্সবাজার সদর উপজেলার নির্বাচনে আমার কোন কেন্দ্রে প্রবেশ করার প্রশ্নই উঠে না । উক্ত উপজেলা নির্বাচন নিয়ে কোথাও কোন অনিয়মের অভিযোগই নেই। মূলত আমাকে ব্যাক্তিগত ভাবে হয়রানি করার জন্য ও আমার সুনাম ক্ষুন্ন করার জন্য একটি মহল আমার বক্তব্যকে বিকৃত করে আমি ভোট ডাকাতি করেছি মর্মে মিথ্যা বানোয়াট ও ভিত্তিহীন সংবাদ সংবাদ প্রকাশ করে। আমি উক্ত মিথ্যা সংবাদের তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি।

নিবেদক:

এস এম ইমরুল কায়েস চৌধুরী
চেয়ারম্যান হলদিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদ, উখিয়া, কক্সবাজার।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।