৮ আগস্ট, ২০২২ | ২৪ শ্রাবণ, ১৪২৯ | ৯ মহর্‌রম, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভলিবল প্রতিযোগিতায় ১১ পদাতিক ডিভিশন চ্যাম্পিয়ন   ●  কুতুবদিয়ায় মাদক মামলার পলাতক আসামী আবদুল মান্নান গ্রেফতার   ●  ‘কোনো অন্যায়ের কাছে সাংবাদিকরা মাথা নত করবে না’   ●  শেখ কামালের জন্মদিনে জেলা প্রশাসন বনাম কক্সবাজার পৌরসভা একাদশের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ড্র   ●  শেখ কামালের জন্মদিনে পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের আলোচনা সভা দোয়া মাহফিল ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ   ●  শেখ কামালের জন্মদিনে শ্রদ্ধা জানালেন হলদিয়াপালং আওয়ামীলীগ   ●  প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা   ●  সামাজিক বনায়নে ভাগ্য বদল ১৬৮ জন উপকারভোগীর   ●  নীল নকশা   ●  জালিয়াপালংয়ে সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার সংবাদকর্মী ইমরান

প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা

গত ৪ আগষ্ট দৈনিক কক্সবাজার পত্রিকায় “আশিক বাহিনীর হাতে মারধরের শিকার হয়েছে গণধর্ষণ মামলার স্বাক্ষী: নিরাপত্তা চেয়েছেন অসহায় নারী” শিরোনামে প্রকাশিত সংবাদটি আমাদের দৃষ্টি গোচর হয়েছে। সংবাদে যা উল্লেখ করা হয়েছে তার লেশ মাত্র সঠিক নয়। এটি শাক দিয়ে মাছ ঢাকারমত একটি ঘটনা। নিজেদের অপরাধ ঢাকতে আমাদের বিরুদ্ধে অপপ্রচার ছাড়া আর কিছুই নয়। এটি মিথ্যা, বানোয়াট, ভিত্তিহীন ও উদ্দশ্য প্রনোদিত। সংবাদে আমাদের যে নাম গুলি উল্লেখ করা হয়েছে আমরা কেউ আশিক বাহিনীর সাথে সম্পৃক্ত নই। আমরা সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষ। ছোট-খাট ব্যাবসা বাণিজ্য করে কোন রকম সংসার চালায়। শুধু আশিক বাহিনী নয়, আমরা কোন বাহিনীর সদস্য নই। যে ছেনুয়ারা এবং তার সন্তানদের মারধরার করার কথা উল্লেখ করা হয়েছে তা জঘন্য অপবাদ। তারা আমার পাশের একটি ঘরে রায়তি হিসাবে (পাহারাদার হিসাবে) অন্যের ঘরে বসবাস করে। কিন্তু ওই মহিলা ওই ঘরটি নিজের দাবী করে আমার সিমানা নিয়ে প্রায় সময় ঝগড়া করে। সে আমাদের গাল মন্দ করলেও আমরা তার প্রতিবাদ করি না। যা আশপাশের লোকজন সকলেই জানে। ওই মহিলা সম্পর্কে এলাকায় একটু খোঁজ নিলেই পরিবারটির আসল রহস্য বেরিয়ে আসবে তারা আসলেই কি করে, কোন প্রকৃতির। আমরা তার প্রতিবেশী হওয়াটায় হচ্ছে তার জন্য আপত্তিকর। কারণ তার অনৈতিক কাজে আমরা এলাকাবাসী প্রতিবাদ করি। ওই মহিলা আমাদের ঘায়েল করতে আশিক বাহিনীর সদস্য হিসাবে পরিচয় করানোর অপ-চেষ্টা করছেন। সংবাদে উল্লেখ করা হয়েছে আমরা ওই মহিলাকে ঘরছাড়া করার চেষ্টা করছি, তার ঘরে ভাংচুর করেছি, তাকে এবং তার ছেলেদের মারধর করেছি যাকোন ভাবেই সঠিক নয়। আপনারা সকলেই জানেন এ ধরণের ঘটনা কখনও লুকিয়ে করা যায় না। আসলেই যদি এধরণের ঘটনা ঘটতো তাহলে আশ পাশের লোকজন কি তা দেখতো না? আমরা কোন বাহিনীর সাথে জড়িত নই। আমরা সাধারণ মানুষ, আমরা পরিশ্রম করে সংসার চালায়। শুধু শুধু আমাদের হয়রানি করার জন্য সংবাদ কর্মী ভাইদের মিথ্যা তথ্য দিয়ে এ ধরনের মিথ্যা বানোয়াট, ভিত্তিহীন সংবাদ পারিবেশন করিয়েছেন। আমরা উক্ত সংবাদের তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। পাশাপাশি উক্ত সংবাদে এলাকাবাসী ও প্রশাসনকে বিভ্রান্ত না হওয়ার অনুরোধ করছি।

প্রতিবাদকারী,
আবু বাহাদুর, পিতা- ইমাম হোসেন
সাং- পশ্চিম বাহারছড়া, পৌরসভা, কক্সবাজার।
মো:হোসেন, পিতা-মো: বাদশা ও মোহাম্মদ জুয়েল, সাং- দক্ষিন বাহারছাড়া, পৌরসভা, কক্সবাজার।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।