২২ জুন, ২০২৪ | ৮ আষাঢ়, ১৪৩১ | ১৫ জিলহজ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  সোনারপাড়া উচ্চ বিদ্যালয় ব্যাচ ২০১৯-এর ঈদ পূণর্মিলন অনুষ্ঠিত হয়েছে   ●  পাহাড় ধ্বসঃ ৮ রোহিঙ্গাসহ নিহত ১০   ●  উখিয়ার ক্যাম্পে পৃথক পাহাড় ধ্বসে ৭ রোহিঙ্গা সহ নিহত ৯   ●  রামুতে ঘুমন্ত স্বামী-স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা   ●  উখিয়া-টেকনাফের ৫ শতাধিক তরুন-তরুণীকে কারিগরি প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ‘সুশীলন’   ●  খাদ্যে ভেজাল রোধে সামাজিক আন্দোলন দরকার : খাদ্যমন্ত্রী   ●  ইজিবাইকের ছাদে তুলে ৮ বছরের শিশু নির্যাতন ভিডিও ভাইরাল: তিন অভিযুক্ত গ্রেপ্তার   ●  ভবিষ্যতে প্রেস কাউন্সিলের সার্টিফিকেট ছাড়া সাংবাদিকতা করা যাবে না   ●  একমাসেও অধরা ঘাতক চক্র, চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের অগ্রগতি নিয়ে পরিবারে হতাশ   ●  সমুদ্রকেই ঘিরে কক্সবাজারের অর্থনীতি

পেকুয়ায় বিএনপির নাশকতা ঠেকাতে দিনভর তৎপর এমপি জাফর আলম

বার্তা পরিবেশক:

কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ জাফর আলম এমএ গতকাল রবিবার (২৮ আগষ্ট) ভোর সাড়ে ৫টা থেকে রাত দশটা পর্যন্ত চকরিয়া ও পেকুয়া তৎপর ছিলেন স্বাধীনতাবিরোধী বিএনপি-জামায়াতচক্রের যে কোন ধরণের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিহত করতে। এমপি জাফর আলম দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে পেকুয়া উপজেলার বিভিন্নস্থানে (পেকুয়া উপজেলা প্রশাসন কর্তৃক জারিকৃত ১৪৪ ধারার আওতাভুক্ত এলাকার বাইরে) সতর্ক অবস্থান নেন। যাতে ভারতের শিলংয়ে অবস্থানকারী বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিনের নির্দেশনা মোতাবেক বিএনপির নেতাকর্মীরা উপজেলা প্রশাসনের জারিকৃত ১৪৪ ভাঙতে না পারে।
এমপি জাফর আলমের ব্যক্তিগত সহকারি আমিন চৌধুরী বলেন, ‘ভারতের শিলংয়ে অবস্থানকারী বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিনের কঠোর নির্দেশনা ছিল ১৪৪ ধারা ভাঙতে হবে এবং মাঠে নেমে বিএনপি নেতাকর্মীদের দেখিয়ে দিতে হবে বিএনপির শক্তি। তাই বিএনপির সেই ধ্বংসাত্মক ও নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিরোধ করতে এমপি জাফর আলম দলীয় নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকায় মাঠে তৎপর রয়েছেন। এর পরও বিএনপি যদি মাঠে নামার চেষ্টা করে তাহলে পাল্টা জবাব দিতে প্রস্তুত রাখা হয় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের। তবে রবিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত বিএনপি মাঠে নামার সাহস করেনি।’
পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মো. শহীদুল্লাহ বলেন, ‘আন্দোলনের নামে শান্ত পেকুয়ায় স্বাধীনতাবিরোধী বিএনপি-জামায়াতকে কোন ধরণের নাশকতামূলক অপতৎপরতা চালাতে দেওয়া হবে না। জনগণের জানমালের হেফাজত করতে এমপি জাফর আলমের নির্দেশে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা অতন্দ্র প্রহরীর ভূমিকায় রয়েছে।’
১৪৪ ধারা জারির পরও বিভিন্ন এলাকায় আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের দেখা যাচ্ছে। এটি কেনো এমন প্রশ্নে পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি শহীদুল্লাহ বলেন, ‘আমাদের কাছে তথ্য ছিল, অবৈধ অনুপ্রবেশের দায়ে ভারতের শিলংয়ে অবস্থানকারী বিএনপি নেতা সালাহউদ্দিনের কঠোর নির্দেশনা রয়েছে- যে কোন মূল্যে ১৪৪ ধারা ভেঙে পেকুয়ায় সমাবেশ করতে হবে। তাই আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বিএনপির ধ্বংসাত্মকমূলক কর্মকাণ্ড প্রতিহত করতে প্রস্তুত রাখা হয়েছে। তবে আওয়ামী লীগের কোন নেতাকর্মী প্রশাসনের জারিকৃত ১৪৪ ধারার আওতাভূক্ত এলাকায় প্রবেশ করেনি। একইসাথে পূর্ব ঘোষিত ২১ আগষ্ট গ্রেনেড হামলা দিবসের পালনেরও কর্মসূচীও স্থগিত করা হয়েছে।’
এদিকে বিএনপির যে কোন ধরণের নাশকতামূলক কর্মকাণ্ড প্রতিহত করার জন্য নেতাকর্মীদের সর্বাত্মক প্রস্তুত রেখে পেকুয়া উপজেলা প্রশাসনের জারিকৃত ১৪৪ ধারার নির্দিষ্ট এলাকার বাইরে অবস্থান করতে দেখা যায় কক্সবাজার-১ আসনের সংসদ সদস্য ও চকরিয়া উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি জাফর আলমকে। রবিবার ভোর থেকেই পেকুয়ায় বিএনপির অপতৎপরতা ঠেকাতে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে এমপি মাঠে অবস্থান করেন। যাতে প্রশাসন ও পুলিশকে সহায়তা দেওয়া যায়।
প্রসঙ্গত কেন্দ্রীয় কর্মসূচীর আলোকে পেকুয়া উপজেলা বিএনপি রবিবার সকালে পেকুয়া সদরের চৌমুহনী এলাকায় বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করার ঘোষণা দেয়। একই স্থানে একই সময়ে পেকুয়া উপজেলা আওয়ামী লীগও ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার প্রতিবাদে বিােভ সমাবেশের পাল্টা কর্মসূচি দিলে সম্ভাব্য সংঘাত-সংঘর্ষ এড়াতে পেকুয়া উপজেলা প্রশাসন নির্দিষ্ট এলাকায় ১৪৪ ধারা জারির পর তা উপজেলাজুড়ে মাইকিং করা হয়।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।