২৩ মে, ২০২৪ | ৯ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৪ জিলকদ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে সাঁড়াশি অভিযানে বিপুল পরিমাণ অস্ত্র ও গুলিসহ আরসা সন্ত্রাসী গ্রেপ্তার    ●  নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলার প্রথম নির্বাচনে সহিংসতায় যুবক খুন; বসতবাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ    ●  এভারকেয়ার হসপিটালের শিশু হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. তাহেরা নাজরীন এখন কক্সবাজারে   ●  কালেক্টরেট চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী সমিতির সভাপতি আব্দুল হক, সম্পাদক নাজমুল   ●  ক্যাম্পের বাইরে সেমিনারে অংশ নিয়ে আটক ৩২ রোহিঙ্গা   ●  চেয়ারম্যান প্রার্থী সামসুল আলমের অভিযোগ;  ‘আমার কর্মীদের হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে’   ●  নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবকিছু কঠোর থাকবে, অনিয়ম হলেই ৯৯৯ অভিযোগ করা যাবে   ●  উখিয়া -টেকনাফে শাসরুদ্ধকর অভিযানঃ  জি থ্রি রাইফেল, শুটারগান ও গুলিসহ গ্রেপ্তার ৫   ●  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হেড মাঝিকে  তুলে নিয়ে   গুলি করে হত্যা   ●  যুগান্তর কক্সবাজার প্রতিনিধি জসিমের পিতৃবিয়োগ

পেকুয়ার আলোচিত জয়নাল হত্যা মামলা অবশেষে গ্রেপ্তার রিপন

নিজস্ব প্রতিবেদক:

কক্সবাজারের পেকুয়া উপজেলার মগনামার আলোচিত জয়নাল আবেদীন হত্যা মামলার অন্যতম আসামি সোলতান মোহাম্মদ রিপনকে (৩৮) গ্রেপ্তার করেছে অপরাধ গোয়েন্দা সংস্থা (সিআইডি)। মঙ্গলবার বিকেল পাঁচটার দিকে পেকুয়া বাজার থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে। রিপন মহুরীপাড়া এলাকার মৃত মাহবুবুর রহমানের ছেলে।

গতকাল বুধবার দুপুরে তাকে চকরিয়া সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে সোপর্দ করলে আদালত তাকে জেলহাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।

সিআইডি সূত্র জানায়, ২০২১ সালের ২ মে রাত সাড়ে আটটার দিকে কিছু দুর্বৃত্ত কুপিয়ে ও গুলি করে হত্যা করে জয়নালকে। এ ঘটনায় নিহতের ভাই আমিরুজ্জামান ৩২জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেন। পেকুয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) হেবজুর রহমান দীর্ঘ তদন্ত শেষে ৩২ আসামির মধ্যে ২২জনের বিরুদ্ধে আদালতে তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করেন। ১০ জনকে মামলা থেকে তদন্ত কর্মকর্তা অব্যহতির সুপারিশ করেন।

আদালতে দায়ের করা অভিযোগপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, আসামি মাহমুদুল করিম আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন। সেখানে তিনি বলেন, সোলতান মোহাম্মদ রিপন জয়নালকে কুপিয়ে মারে এবং জয়নালকে হত্যার পূর্বে মগনামা ঈদগা মাঠে ষড়যন্ত্র বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমানে আদালতের নির্দেশে কক্সবাজারের সিআইডির পুলিশ কর্মকর্তা সাইফুল ইসলাম মামলাটির তদন্ত করছেন। তদন্ত চলাকালে ২৫ জুলাই বিকেলে তিনি মামলার আট নম্বর আসামি সোলতান মোহাম্মদ রিপনকে গ্রেপ্তার করেন।

মামলার বাদি আমিরুজ্জামান বলেন, সোলতান মোহাম্মদ রিপন মামলা থেকে বাঁচতে লাখ লাখ টাকা খরচ করে ইউনিয়ন আওযামী লীগের সাধারণ সম্পাদক হন। সাধারণ সম্পাদক হয়েই তিনি মোটা অংকের টাকা নিয়ে মামলা থেকে বাঁচার চেষ্টা করে। কিন্তু সিআইডির সাহসী কর্মকর্তা সাইফুল ইসলামের দৃঢ় মনোভাবের কারনে টাকা দিয়েও মিশন বাস্তবায়ন করতে পারেননি তিনি।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।