২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৯ মাঘ, ১৪২৯ | ১০ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

নাটকীয়ভাবে সালাউদ্দিনের সন্ধান মিলতে পারে!

Salah Uddin Ahmed 1
বিএনপি নেতা সালাউদ্দিন আহমেদ নিখোঁজ নিয়ে বিভিন্ন মহলে মিশ্র ধারণার সৃষ্টি হয়েছে। হাইকোর্টের নির্দেশনা অনুযায়ী সালাহ উদ্দিন আহমেদকে আদালতে হাজিরের সময়সীমা শেষ হচ্ছে আজ। কিন্তু আইন শৃঙ্খলা রাক্ষাকারি বাহিনীর কোন সংস্থাই স্বীকার করেননি যে তাদের কাছে রয়েছেন সালাউদ্দিন।
অপরদিকে সালাউদ্দিন আহমেদের পরিবারের দাবি গত মঙ্গলবার রাতে আইন শৃঙ্খলা বাহিনীর পরিচয়েই বাসা থেকে তাকে তুলে নিয়ে যাওয়া হয়েছে।
এদিকে অনেকে ধারণা করছেন, পরিবেশবাদী আইনজীবী ও বেলার নির্বাহী পরিচালক এ্যাডভোকেট রিজওয়ানা চৌধূরীর স্বামী এবি সিদ্দিকের মত সালাউদ্দিন আহমেদকে রাস্তায় কোন স্থানে ফেলে চলে যাবে দুর্বৃত্তরা। আবার অনেকের ধারণা, কোন এক অজ্ঞাত স্থান থেকে সালাউদ্দিনের সন্ধান মিলবে। তাকে কেউ অপহরণও করতে পারে। আবার মামলা ও গ্রেপ্তার এড়াতে বিদেশেও চলে যাবার পোষণ করেছেন বিএনপি সংশ্লিষ্টরাই।

অন্যদিকে চারদিন পার হলেও সালাহ উদ্দিন আহমেদের সন্ধান না পাওয়ায় শঙ্কিত দলটির নেতাকর্মীরা। অন্যদিকে ভীতসন্ত্রস্ত হয়ে পড়েছেন তার পরিবারের সদস্যরা।

এদিকে নিখোঁজ সালাহ উদ্দিন আহমেদের খোঁজ যখন সরকার এবং প্রশাসন দিতে পারছে না তখনই উত্তরার দক্ষিণখানের কেসি নামক একটি হাসপাতালে তিনি আছেন বলে এলাকায় গুঞ্জন উঠেছে। কেসি হাসপাতালটি দক্ষিণখান বাজারের পশ্চিম পাশে অবস্থিত। দুই দিন যাবত এলাকায় গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে যে বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব নিখোঁজ সালাহ উদ্দিন আহমেদ ওই হাসপাতালে আছেন।

বিবিসির সংলাপ
বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সালাহ উদ্দিন আহমদ নিখোঁজের ঘটনা কি নিছক নিখোঁজ? নাকি রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দমনের চেষ্টা- এ প্রশ্ন ওঠেছে ‘বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপ’ অনুষ্ঠানে। সরকারবিরোধী পক্ষের আলোচক বলেছেন, এ নেতাকে লুকিয়ে রাখা হয়েছে বলে প্রধানমন্ত্রী যে মন্তব্য করেছেন তা তিনি প্রমাণ করুক।
শনিবার সন্ধ্যায় রাজধানীর বিয়াম মিলনায়তনে বিবিসি বাংলাদেশ সংলাপের ১০৮তম পর্ব হয়। এবার অতিথি ছিলেন প্রধানমন্ত্রীর গণমাধ্যম বিষয়ক উপদেষ্টা এবং ইংরেজি দৈনিক দ্য অবজারভারের সম্পাদক ইকবাল সোবহান চৌধুরী, বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা এবং সিনিয়র সাংবাদিক শওকত মাহমুদ, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. তাজমেরি এস এ ইসলাম এবং বেসরকারি সংগঠন নিজেরা করি’র সমন্বয়ক খুশী কবির।
অনুষ্ঠানে এক দর্শক জানতে চান- সালাহ উদ্দিন আহমদের বিষয়টি কি নিছক একটি নিখোঁজ হওয়ার ঘটনা, নাকি তা রাজনৈতিক প্রতিপক্ষ দমনের একটি চেষ্টা? জবাবে খুশী কবির বলেন, দুটোই হতে পারে। প্রতিপক্ষ দমনের চেষ্টা বর্তমান সরকার ও বিগত সরকার সবাই করেছে। তিনি বলেন, একজন মানুষ নিখোঁজ হয়ে গেলো। আমরা অবশ্যই এ ঘটনায় উদ্বিগ্ন। সালাহ উদ্দিন আহমদকে হাজির করতে আদালত আইনশৃক্সখলা বাহিনীকে নির্দেশ দিয়েছেন। এজন্য আমরা রোববার পর্যন্ত অপেক্ষা করছি।
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা শনিবার এক অনুষ্ঠানে বলেছেন, খালেদা জিয়াকে জবাব দিতে হবে, তিনি সালাহ উদ্দিন আহমেদকে কোথায় লুকিয়ে রেখেছেন।
এ বিষয়ে এক দর্শক বলেন, খালেদা জিয়া খোঁজ দিতে পারলে আইনশৃক্সখলা বাহিনীর কাজ কী? শওকত মাহমুদ বলেন, সরকার যে লুকিয়ে রাখার কথা বলছে, তা প্রমাণ করুক। বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত খবরের বরাত দিয়ে তিনি বলেন, সাদা পোশাকে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী বিভিন্ন ব্যক্তিকে তুলে নিয়ে যাওয়ার পর খোঁজ মিলছে না। কয়েকদিন পরে দেখা যাচ্ছে আইন শৃঙ্খলা বাহিনী স্বীকার করছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।