১৮ জুলাই, ২০২৪ | ৩ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ১১ মহর্‌রম, ১৪৪৬


শিরোনাম
  ●  কলেজছাত্র মুরাদ হত্যা মামলার আসামি রহিম কারাগারে   ●  আন্দোলনের নামে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির প্রতিবাদে কক্সবাজার ছাত্রলীগের সমাবেশ   ●  স্বেচ্ছাসেবী কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা প্রদান    ●  চতুর্থবারের মতো শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট নির্বাচিত হলেন রোবায়েত   ●  সেন্টমার্টিনে ২ বিজিপি সদস্যসহ ৩৩ রোহিঙ্গা বোঝাই ট্রলার   ●  উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২   ●  উখিয়ায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি; কাঁচা ঘরবাড়ি, গ্রামীণ সড়ক লন্ডভন্ড   ●  উখিয়ায় কৃষি বিভাগের প্রণোদনা পেলেন ১৮০০ কৃষক /কৃষাণী   ●  আরসার জোন ও কিলিংগ্রুপ কমান্ডার আটক ৩   ●  পটিয়া প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত

দৈনিক রূপসীগ্রাম এ প্রকাশিত সংবাদ প্রসঙ্গে সাবেক চেয়ারম্যান ওয়াসিমের বক্তব্য

সংবাদ বিজ্ঞপ্তি;

গত ১৩ অক্টোবর কক্সবাজারের স্থানীয় দৈনিক রূপসীগ্রাম পত্রিকার প্রথম পাতায় ‘পেকুয়ায় আবু সৈয়দ হত্যাকান্ডের মাস্টারমাইন্ড সাবেক চেয়ারম্যান ওয়াসিম, তার বাড়ি থেকে অস্ত্রসহ প্রধান আসামি গ্রেফতার, আবু সৈয়দের কেটে নেয়া পা এখনো উদ্ধার হয়নি’ শিরোনামে এবং বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত সংবাদের একাংশের তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। একই সাথে নিরীহ মানুষকে হয়রানি বন্ধ করে মগনামায় সংগঠিত সকল হত্যাকান্ডের ন্যায় বিচার দাবি করছি। প্রকাশিত সংবাদে পূর্ব পরিকল্পনার অংশ হিসেবে আমি শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম এর মানহানির জন্য বিভ্রান্তিকর, মিথ্যা, ভিত্তিহীন, বানোয়াট, অতিরঞ্জিত, আজগুবি তথ্য উপস্থাপন করে সংবাদ প্রকাশ করা হয়েছে। যা সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যমূলক এবং মূল ঘটনাকে ভিন্ন খাতে নেয়ার চেষ্টা মাত্র। মূলতঃ আমি শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম ২০২১ সালে অনুষ্ঠিত ইউপি নির্বাচনের পর থেকে স্বপরিবারে চট্টগ্রাম শহরে বসবাস করে আসছি। সামাজিক অনুষ্ঠান, ঈদ ছাড়া পেকুয়া মগনামায় তেমন যাওয়া হয়নি। এরমধ্যেই গত ২৬/০৯/২৩ ইং থেকে ১২/১০/২৩ ইং পর্যন্ত ভ্রমনের উদ্দেশ্যে দুবাই অবস্থান করি। সেখান থেকে বর্তমানে চীনে অবস্থান করছি। এ অবস্থায় হঠাৎ করেই সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে জানতে পারি, পেকুয়ার মগনামায় আবু ছৈয়দ নামে এক ব্যক্তি প্রকাশ্যে দিনের বেলায় নির্মমভাবে হত্যার শিকার হয়েছেন। আরও জানতে পারি, আবু ছৈয়দ চাঞ্চল্যকর জয়নাল ও জাফর হত্যা, ৪ টি হত্যা চেষ্টা, ডাকাতি, মারামারি সহ অন্তত এক ডজন মামলার আসামি। এরপরও একজন সাবেক চেয়ারম্যান এবং সচেতন নাগরিক হিসেবে হত্যা এবং যেকোন অপরাধের বিরুদ্ধে আমার অবস্থান। আবু ছৈয়দ সহ সকল হত্যার বিচারের পাশাপাশি নিরীহ মানুষকে হয়রানি বন্ধের দাবি জানাচ্ছি। একইসাথে নিহত আবু ছৈয়দের শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা প্রকাশ করছি। কিন্তু অত্যান্ত দুঃখের বিষয় হলো, প্রকাশ্যে দিবালোকে সংগঠিত এমন একটি নির্মম হত্যাকান্ডের ঘটনায় ভিকটিমের পরিবারকে ব্যবহার করে অনেক নিরীহ লোকজনকে উক্ত ঘটনায় হয়রানি করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এমনকি শুধুমাত্র নির্বাচনী প্রতিদ্বন্দ্বিতাকারী হওয়ায় উক্ত ঘটনার সাথে মিথ্যা আজগুবি গল্প সাজিয়ে আমি শরাফত উল্লাহ চৌধুরী ওয়াসিম এর বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচারে লিপ্ত রয়েছেন বর্তমান চেয়ারম্যান ইউনুছ। প্রকাশিত সংবাদে আমার বিষয়ে যা উল্লেখ করা হয়েছে তা উক্ত অপপ্রচারের অংশবিশেষ। প্রকাশিত সংবাদে আমাকে জামায়াত ক্যাডার হিসেবে উল্লেখ করা হয়েছে, যা হাস্যকর। অথচ আমি পেকুয়া উপজেলা আওয়ামীলীগের রাজনীতির সাথে জড়িত। এছাড়া আমার বাড়ি থেকে অস্ত্র সহ আসামি গ্রেফতার এবং অস্ত্র উদ্ধারের কথাও প্রচার করা হচ্ছে, যা মিথ্যা। মূলতঃ আবু ছৈয়দ হত্যা মামলার এজাহারভূক্ত ২ নম্বর আসামি নেজাম উদ্দিন আমি ইউপি চেয়ারম্যান থাকাকালে মাস্টাররোলে অফিস সহকারী ছিলেন। ফলে তাকে সবাই আমার স্নেহভাজন মনে করে। এজাহারভূক্ত আসামি হওয়ার পর আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা ধাওয়া দিলে নেজাম উদ্দিন আমার বাড়িতে ঢুকে পড়ে। পরবর্তীতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা তাকে আটক করে। এক্ষেত্রে আমার বাড়ির সদস্য এবং সিকিউরিটি গার্ডরা আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে সহায়তা করেন। অথচ চেয়ারম্যান ইউনুছ তার কিছু সমর্থকদের নিয়ে আমার বিরুদ্ধে মিথ্যা অপপ্রচার চালাচ্ছে। আজকে নিহত আবু ছৈয়দের জন্য মায়াকান্না করা ইউনুছ চেয়ারম্যানের দায়ের করা তিনটি মামলার আসামি হলেন আবু ছৈয়দ। যা এখনো বিচারাধীন। ফলে উক্ত ঘটনায় ইউনুছ চেয়ারম্যানের এমন তৎপরতাও রহস্যের সৃষ্টি করেছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।