১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

টেকনাফে গলায় ফাঁস লাগিয়ে যুবতীর আত্মহত্যা

images

টেকনাফে গলায় ফাঁস লাগিয়ে এক যুবতী আত্মহত্যা করেছে। ৯ মার্চ সোম বার দিবাগত রাতে সর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের হাবিরছড়া গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। স্থানীয় সূত্রে জানা যায় টেকনাফ সদর ইউনিয়নের হাবিরছড়া এলাকার সিএনজি চালক নুর আলম ৭ মাস পূর্বে সাবরাং ইউনিয়নের চান্দলী পাড়া বাহারছড়া এলাকার ইয়াছমিন আক্তার (২২) কে মোবাইল প্রেমের সূত্রধরে ২য় স্ত্রী হিসাবে বিয়ে করে। নুরুল আলমের ১ম স্ত্রী শাহেনা আক্তারের সাথে আত্মহত্যাকারী ২য় স্ত্রী ইয়াছমিন আক্তারের সাথে প্রায় সময় ঝগড়া হত। নুরুল আলম স্থানীয় শালিশের মাধ্যমে ২ মেয়েসহ ১ম স্ত্রীকে অন্যত্র রেখে ২য় স্ত্রীকে নিয়ে সংসার চালিয়ে যায়। পার্শ্ববর্তী কয়েকজন জানায় ২য় স্ত্রী ইয়াছমিন আক্তার প্রায় সময় আত্মহত্যা করে সবাইকে জেলে পাঠাবে এ রকম হুমকি দিয়ে আসত। অবশেষে ৯ মার্চ সোম বার স্বামী বাড়ীতে না থাকার সুবাদে দিবাগত গভীর রাতে উঠানের আম গাছের সাথে ওড়না পেছিয়ে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মহত্যা করে।

ঘটনার খবর সোম বার ভোরে টেকনাফ মডেল থানার ওসি আতাউর রহমান খন্দকারকে জানানো হয়েছে।
এদিকে বিশেষ সূত্রে জানা যায় ৮ মাস পূর্বে সাবরাং ইউনিয়নের চান্দলী পাড়া বাহারছড়া এলাকার ইয়াছমিন আক্তার (২২)এর সাথে মোবাইল মিস কলের সূত্র ধরে নুরুল আলমের সাথে প্রেমের সম্পর্ক হয়। একমাস মোবাইলে প্রেম চলার পর চান্দলী পাড়া বাহারছড়া এলাকায় ইয়াছমিন আক্তার এর সাথে দেখা করতে যায় নুরুল আলম। এ সুযোগে নুরুল আলমকে ইয়াছমিন আক্তার এর আত্মীয় স্বজন বাড়ীতে আটকে রাখে। পরে খবর পেয়ে ১ম স্ত্রী শাহেনা গিয়ে ইয়াছমিনকে নিজের স্বামীর ২য় স্ত্রী হিসাবে গ্রহণ করে হাবিরছড়া নিয়ে আসে।
অপরদিকে নুরুল আলমের বড় ভাই এখনো বিয়ে করেনি। মাত্র ২৫ বৎসর বয়সে নুরুল আলমের ২ স্ত্রী ২ কন্যা ও সব সময় পারিবারিক জট ঝামেলা ভাল চোখে দেখছেনা এলাকার লোক জন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।