১৮ জুলাই, ২০২৪ | ৩ শ্রাবণ, ১৪৩১ | ১১ মহর্‌রম, ১৪৪৬


শিরোনাম
  ●  কলেজছাত্র মুরাদ হত্যা মামলার আসামি রহিম কারাগারে   ●  আন্দোলনের নামে অস্থিতিশীল পরিস্থিতি তৈরির প্রতিবাদে কক্সবাজার ছাত্রলীগের সমাবেশ   ●  স্বেচ্ছাসেবী কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা প্রদান    ●  চতুর্থবারের মতো শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট নির্বাচিত হলেন রোবায়েত   ●  সেন্টমার্টিনে ২ বিজিপি সদস্যসহ ৩৩ রোহিঙ্গা বোঝাই ট্রলার   ●  উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২   ●  উখিয়ায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি; কাঁচা ঘরবাড়ি, গ্রামীণ সড়ক লন্ডভন্ড   ●  উখিয়ায় কৃষি বিভাগের প্রণোদনা পেলেন ১৮০০ কৃষক /কৃষাণী   ●  আরসার জোন ও কিলিংগ্রুপ কমান্ডার আটক ৩   ●  পটিয়া প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত

সংবাদ সম্মেলনে অভিযোগ :

চেয়ারম্যানের অপরাধের প্রতিবাদ করে নিরাপত্তাহীনতায় উখিয়ার এক আওয়ামীলীগ নেতা

কক্সবাজারের উখিয়ার পালংখালী ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরীর বিভিন্ন অপরাধের প্রতিবাদ ও মামলায় সাক্ষি হওয়ায নিরাপত্তাহীনতায় রয়েছেন নুরুল আলম প্রকাশ শেখ আলম নামের স্থানীয় এক আওয়ামীলীগ নেতা। স্ত্রী, ২ সন্তানকে নিয়ে তিনি এখন নিয়ে উদ্বিগ্ন। জানমালের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পুলিশ সুপারসহ সংশ্লিষ্টদের হস্তদক্ষেপ কামনা করে সংবাদ সম্মেলন করেছেন তিনি।

নুরুল আলম প্রকাশ শেখ আলম উখিয়া উপজেলার পালংখালীর থাইনখালীর বাসিন্দা ও ৪ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি।

মঙ্গলবার (২৯ জুলাই) দুপুরে কক্সবাজার প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলনে নুরুল আলম বলেন, চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিনের নেতৃত্বে একটি সন্ত্রাসী গোষ্ঠি রয়েছে। যারা রাষ্ট্র ও আইন বিরোধী কর্মকান্ডে জড়িত। বিভিন্ন সময় গফুর চেয়ারম্যানসহ তার বাহিনীর সদস্যদের বিরুদ্ধে বিভিন্ন মামলা হয়েছে। এর মধ্যে চাঁদাবাজি মামলা সিআর- ২৩৫/২২ এর পুলিশের অভিযোগপত্রের ২ নম্বর সাক্ষী আমি। যার জের ধরে গফুর আমাকে এবং আমার পরিবারের সদস্যদের প্রকাশ্যে হুমকি দিয়ে আসছে। বিষয়টি আমি আইন শৃঙ্খলা বাহিনী এবং গণমাধ্যমকে অবহিত করেছিলাম।

 

তিনি বলেন, আমি মুক্তিযুদ্ধে চেতনায় বিশ্বাসী। আমি সারাজীবন এমন রাষ্ট্র বিরোধী, আইন বিরোধী কাজের প্রতিবাদ করে আসছি। চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন একজন চিহ্নিত অপরাধি। যার বিরুদ্ধে ৫ টি মামলার অভিযোগপত্র আদালতে গৃহিত হয়ে চার্জ গঠন করেছে। বাংলাদেশের আইন মতে তিনি চেয়ারম্যানের দায়িত্ব পালনে অযোগ্য। আমি একজন সচেতন নাগরিক হিসেবে কক্সবাজার জেলা প্রশাসক বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছি। যার সূত্র ধরে গত ২ আগস্ট জেলা প্রশাসক স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয় বরাবরে এ সংক্রান্ত একটি প্রতিবেদন প্ররেণ করেছে। যার সূত্র ধরে গফুর চেয়ারম্যান আরও বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। এখন এলাকার চায়ের দোকান, জনসম্মুখে প্রকাশ্যে আমাকে, আমার ২ ছেলে নিশান রিফাত আল মোঃ নিশান ও সোহান ওয়াজেদ জিশানকে হত্যা, বিভিন্ন মামলার আসামি এবং মাদকসহ গ্রেফতার করা হবে বলে হুমকি দিয়ে যাচ্ছে। গফুরের সন্ত্রাসীরা প্রকাশ্যে এসব বলতে শুনা যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আমার ছেলে নিশান কক্সবাজার সিটি কলেজের ছাত্র। জিশান পালংখালী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশ শ্রেণীর ছাত্র। এখন যে কোন সময় মিথ্যা মামলা, মাদক বা অস্ত্র দিয়ে আমাকে বা আমার ২ সন্তানকে গ্রেফতার, হামলা করে আমার উপর প্রতিশোধ নিতে পারেন গফুর চেয়ারম্যান। এব্যাপারে সাধারণ ডায়েরিও লিপিবদ্ধ করেছি আমি।

সংবাদ সম্মেলনে অনুসন্ধান করে গফুর উদ্দিনের সন্ত্রাসী বাহিনীর অপকর্মগুলো বেরিয়ে আনার জন্য সাংবাদিকদের অনুরোধ জানান নুরুল আলম প্রকাশ শেখ আলম।

সংবাদ সম্মেলনে ছেলে কক্সবাজার সিটি কলেজের স্নাতক প্রথম বর্ষের ছাত্র রিফাত আল মো. নিশান বক্তব্য রাখেন।

এব্যাপারে পালংখালী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান গফুর উদ্দিন চৌধুরী জানান, মুলত শেখ আলম নামের এই ব্যক্তিকে কেন্দ্র করে একটি চক্র পালংখালীতে পাহাড় কেটে মাটি বিক্রি সহ দখল করা হচ্ছে। এসবের প্রতিবাদ করায় তার বিরুদ্ধে নানা ষড়যন্ত্র শুরু হয়েছে। মামলা হয়েছে। আদালতে বিচারাধিন রয়েছে। এতে হুমকি দেয়ার কোন কারণ দেখি না। আর শেখ আলমকে গত কয়েক মাস ধরে তিনি দেখননি। হুমকি দেয়ার কোন বিষয় নেই।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।