৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ২০ মাঘ, ১৪২৯ | ১১ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

চকরিয়া থানার এসআই শাহাদাত চার্জসীট থেকে আসামী বাদ দিলেন দু’লাখ টাকায়

SI_Shahadat chakoria tana coxsbazar
কক্সবাজারের চকরিয়া থানায় দায়েরকৃত একটি জিআর মামলায় অভিযুক্ত মুল দুই আসামীর কাছ থেকে ২ লাখ টাকার ঘুষ নিয়ে চার্জসীট হতে বাদ দিয়েছেন বহু বির্তকিত এসআই শাহাদাত হোসেন। এ মামলা হতে দুই জনকে বাদ দিয়েই ক্ষান্ত হননি যেনতেন ভাবে মনগড়া একটি অভিযোগপত্র দাখিল করেছেন আদালতে। এ ঘটনায় মামলার বাদী ওই চার্জসীটের বিরুদ্ধে আদালতে নারাজির দরখাস্ত দিচ্ছেন বলে জানা গেছে। গত ২১ ডিসেম্বর বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে ফুলছড়ি এলাকায় মনজুর বাহিনীর হামলার শিকার হন দুই নারী সহ একই পরিবারের ৪ জন। এঘটনায় থানায় মামলা দায়ের করা হয়। ২৫ জানুয়ারী চকরিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালত আহতদের স্বচক্ষে দেখে মামলার প্রধান আসামী মনজুর আলমকে কারাগারে প্রেরণ করেছিলেন।
জানা যায়, চকরিয়া উপজেলার খুটাখালী ইউনিয়নের ফুলছড়িস্থ এলাকায় সদর উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের মধ্যম নাপিতখালী গ্রামের মরহুম হাজী ইসহাক সওদাগরের ছেলে কুয়েত প্রবাসী লুৎফুর রহমান নির্মিত পাকা বসত ঘর দেখতে গিয়ে গত ২১ ডিসেম্বর বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে মনজুর বাহিনীর হামলার শিকার হন একই পরিবারের ৪ জন। এসময় ইসলামপুর ধর্মেরছড়া গ্রামের আলী হোছনের ছেলে সৈয়দ করিম লটকাইয়া হত্যা মামলার আসামী সন্ত্রাসী মনজুর আলমের নেতৃত্বে ১০/১৫ জনের একদল সশস্ত্র দুর্বুত্ত পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পরিকল্পিত ভাবে হামলা চালিয়ে এলোপাতাড়ি কুপিয়ে ও লোহার রড় দিয়ে মারধর করে গুরুতর আহত করা হয় ছালেহা খানম বিউটি, হামিদা আকতার রুবি সহ ৪ জনকে। ঘটনার সময় দুই মহিলার শ্লীলতাহানী করে দুর্বৃত্তরা স্বর্ণালঙ্কারসহ প্রায় দেড় লাখ টাকার মালামাল লুটে নিয়ে যায়।
এ ঘটনায় আহতদের ভাই এম.শাহজাহান চৌধুরী বাদী হয়ে গত ২২ ডিসেম্বর চকরিয়া থানায় একটি মামলা দায়ের করেন ( মামলা নং ৫৩, জিআর ৬৪৯,তাং-২২/১২/২০১৪, ধারা-১৪৩/৪৪৭/৩২৩/২২৫/৩২৬/৩০৭/৩৫৪/৩৭৯/৫০৬)। মামলায় প্রধান আসামী করা হয় ইসলামপুর ধর্মেরছড়া গ্রামের আলী হোছনের ছেলে মনজুর আলমকে। যিনি মধ্যম নাপিতখালী গ্রামের ব্যবসায়ী সৈয়দ করিম লটকাইয়া হত্যা মামলা, বনকর্মীদের রাইফেল লুটসহ আরও ডজনাধিক মামলার আসামী। এ মামলায় আসামী করা হয় আরও ৭ জনকে। ২৫ জানুয়ারী রবিবার চকরিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে আত্মসর্মপন করেন এ মামলার অন্যতম আসামী মনজুর আলম। এসময় আহত ভিকটিমকেও আদালতে হাজির করা হয়। চিকিৎসা সনদ ও আহত করার বিষয়সহ আহত নারীর অবস্থা আদালতের বিচারক স্বচক্ষে দেখে প্রধান আসামী মনজুর আলমকে কারাগারে প্রেরণ করেন। এ মামলায় ৬ জন আসামী জামিনে থাকলেও ৩নং আসামী নুরুল আজিম ডাকাত পলাতক ছিল।
এদিকে, মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা (আইও) এসআই শাহাদত হোসেন ২ লাখ টাকার বিনিময়ে স্পর্শকাতর এই মামলা হতে ৩২৬ ধারা বাদ দিয়ে অভিযুক্ত মুল আসামী মনজুর আলম ও নুরুল আজিম চার্জসীট হতে বাদ দিয়ে চকরিয়া থানার অভিযোগপত্র নং-১০৮ চকরিয়া ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে দাখিল করেছেন।
মামলার বাদী শাহজাহান চৌধুরী জানান, আহত বোনদের চিকিৎসা সনদ দেখে এবং শরীরের আঘাত চকরিয়া জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট স্বচক্ষে দেখে হামলাকারী মনজুরকে কারাগারে প্রেরণ করেছিল। এই মামলার অন্যতম দুই আসামীকে তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই শাহাদত চার্জসীট হতে বাদ দিয়েছেন। এমনকি ৩২৬ ধারাও বাদ দেন। এতে আমি ও আমার পরিবার চরম ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি এবং ন্যায় বিচার প্রাপ্তি হতে বঞ্চিত হওয়ার আশংকা করছি।
তিনি আরও জানান, মামলার তদন্ত ফলাপল বাদীকে জানানোর নিয়ম থাকলেও বির্তকিত এসআই শাহাদত তা করেনি। স্বাক্ষীদের কাছ থেকেও ১৬১ ধারায় জবানবন্দি না নিয়ে আসামীদের তৈরি করা জবানবন্দি চার্জসীটের সাথে সংযুক্ত করে আসামীদের কাছ থেকে ২ লাখ টাকা নিয়ে অত্যন্ত গোপনে আদালতে চার্জসীট দাখিল করেছেন। তদন্তকারী কর্মকর্তা আমার কাছ থেকে চার্জসীটের ব্যাপারে ১ লাখ টাকা ঘুষ দাবী করেছিলেন। তা না দেওয়ায় এ ধরনের ঘটনা করে আমার মামলার অপুরণীয় ক্ষতি করেছে। আমি এব্যাপারে আদালতে পুনঃতদন্তের জন্য আবেদন করছি এবং ওই দুর্র্নীতিবাজ এসআই শাহাদতের বিরুদ্ধে যথাযত ব্যবস্থা গ্রহণের আবেদন জানাচ্ছি।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।