৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ২০ মাঘ, ১৪২৯ | ১১ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

খালেদা জিয়া মিথ্যাচার করেছেন, দাবি হানিফের

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার সংবাদ সম্মেলনে দেওয়া বক্তব্যের প্রতিক্রিয়ায় আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল আলম হানিফ দাবি করেছেন, বেগম খালেদা জিয়া তার বক্তব্যে ‘নির্লজ্জ মিথ্যাচার’ করেছেন।
শুক্রবার বিকেলে ধানমন্ডিতে আওয়ামী লীগ সভাপতির রাজনৈতিক কার্যালয়ে দলের পক্ষ থেকে প্রতিক্রিয়া জানাতে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন, দেশে কোনো রাজনৈতিক সংকট নেই। তাই বিএনপির সঙ্গে কোনো সংলাপ বা সমঝোতাও হবে না। দেশে এখন যা হচ্ছে তা কোনো রাজনৈতিক সংকট নয়, কিছু সহিংস কর্মকাণ্ড চালানো হচ্ছে। এইসব সহিংসতাকারীদের সঙ্গে কোনো সংলাপ হতে পারে না।

হানিফ বলেন, সাধারণ মানুষের ভোটাধিকার কেড়ে নিতেই ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি নির্বাচনের আগে দেশজুড়ে নাশকতা সৃষ্টি করেন খালেদা। তার নির্দেশেই বিএনপি-জামায়াতসহ ২০ দলের ক্যাডাররা মানুষ হত্যা শুরু করে। এ সময় হামলা চালিয়ে বিভিন্ন শিক্ষা-প্রতিষ্ঠানও ধ্বংস করা হয়।
তিনি বলেন, কেন্দ্রে গিয়ে ভোট দেওয়ায় ওই সময় ১৪২জন সাধারণ মানুষকে কুপিয়ে ও পুড়িয়ে হত্যা করেছে তারা। সহিংস কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে মানুষের ভোটের অধিকার কেড়ে নিতে চেয়েছিল বিএনপি। এ অভিযোগে খালেদা জিয়াকে বিচারের মুখোমুখি করা যেতে পারে।

হানিফ অভিযোগ করেন, জামায়াত নির্বাচনে অংশ নিতে পারবে না বলেই খালেদাও ভোটে আসেননি। কারণ বিএনপি জামায়াত একে অপরের বন্ধু। বন্ধুকে ছাড়া খালেদা কীভাবে নির্বাচনে যাবেন?

গত ৫ জানুয়ারি দশম সংসদের বর্ষপূর্তির দিন রাজধানীতে সমাবেশ করতে না পেরে তার কার্যালয়ে অবরুদ্ধ থেকেই লাগাতার অবরোধের ডাক দেন খালেদা জিয়া। ৩ জানুয়ারি রাত থেকেই ওই কার্যালয়ে রয়েছেন তিনি। এরপর  লাগাতার অবারোধের পাশাপাশি দফায় দফায় দেশজুড়ে হরতালও আহ্বান করছে ২০ দলীয় জোট।

গত ১৯ জানুয়ারি এই কার্যালয়েই খালেদা জিয়া সংবাদ সম্মেলনে এসেছিলেন। এরপর একাধিকবার দলের শীর্ষ নেতাদের মাধ্যমে বিবৃতি পাঠালেও তিনি সাংবাদিকদের সামনে আসেননি। অবশেষে শুক্রবার সংবাদ সম্মেলনে এসে খালেদা জিয়া শান্তিপূর্ণ আন্দোলন অব্যাহত রাখার ঘোষণা দেন।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে আরো উপস্থিত ছিলেন আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক ডা. দীপু মনি, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, দপ্তর সম্পাদক ড. আবদুস সোবাহান গোলাপ প্রমুখ।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।