১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

ক্ষুদ্র ঋণের জালে জড়িয়ে অনেকে বিপাকে!

rin
দরিদ্র মানুষের রক্ত চুষে খাচ্ছে এনজিওরা।  দিন দিন ক্ষুদ্র ঋণের জালে জড়িয়ে যাচ্ছে গ্রামের সহজ সরল লোকজন। ক্ষুদ্র ঋণদানকারী বিভিন্ন এনজিও থেকে তারা অহরহ ঋণ নিচ্ছে। একবার যে দরিদ্র লোকটি এনজিও থেকে ক্ষুদ্র ঋণ নিয়েছে সে আর বছরের পর বছর পার হলেও ঐ ঋণের বেড়াজাল থেকে মুক্তি পাচ্ছে না। এলাকার সহজ সরল লোকজন এক এনজিওর ঋণ পরিশোধের জন্য অন্য এনজিও থেকে ঋণ নিচ্ছে। এভাবে একজন লোক কয়েকটি এনজিওর ঋণের জালে জাড়িয়ে ফতুর বনে যাচ্ছে। অনেকেই ঠিক মত ঋণের কিস্তি পরিশোধ করতে না পেরে এলাকা ছেড়েছেন। কেউ কেউ আবার ভিটি বাড়ি বন্ধক দিয়ে ঋণ শোধ করছেন। জানা গেছে, সদর উপজেলার বৃহত্তর ঈদগাঁও এলাকায় একাধিক এনজিও দরিদ্রদের মাঝে ক্ষুদ্র ঋণ বিতরণ করছেন। অভিযোগ রয়েছে- কাগজে কলমে এসব এনজিওরা ঋণের সুদের হার কম দেখানো হলেও বাস্তবে এরা দ্বিগুণ সুদ নিচ্ছে। আবার কোন কোন এনজিও সুদের হার তিনগুণ ছাড়িয়ে গেছে। ঋণ গ্রহণকারী দরিদ্র মানুষের পক্ষে যা পরিশোধ করা সম্ভব নয়। বৃহত্তর ঈদগাঁও তথা ছয় ইউনিয়নের প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলের দরিদ্র মানুষেরা এনজিও থেকে ক্ষুদ্র ঋণ নিচ্ছে এবং বর্তমানেও অব্যাহত রয়েছে। একজন লোক একাধিক এনজিও থেকে ঋণ নিয়েছে। এলাকায় ঋণ নেওয়া হতদরিদ্র লোকজনের মতে, ঋণ নেওয়ার পর সুদ নিয়ে তারা মহাচিন্তায় ভুগছে। এনজিওরা টাকা দেয় ঠিকই কিন্তু সে টাকা খাটাবার সুযোগ দেয় না। তারা যে সপ্তাহে ঋণ দেয় তার পরবর্তী সপ্তাহ থেকে কিস্তি পরিশোধে চাপ সৃষ্টি করে। জনৈক এক নারী ঋণের টাকা পরিশোধ করতে না পেরে গ্রাম ছেড়ে এখন শহরে গিয়ে গৃহ পরিচারিকার কাজ করছেন। এছাড়া বিভিন্ন এলাকার আরো অনেকে এনজিওর ঋণের কারনে সর্বস্বান্ত হয়ে এখন ভিক্ষা করার উপক্রম শুরু হয়েছে। এসব ঋণ গ্রহীতা হতভাগ্য মানুষ বিভিন্ন এনজিও থেকে ঋণ নিয়েছেন। যার ফলে, নানা গ্রামাঞ্চলে ঋণের কিস্তি দেয়াকে কেন্দ্র করে গ্রামের দরিদ্র পরিবার গুলোতে চলছে দ্বন্দ্ব-কলহ আর নানা ঝামেলা। উল্লেখ্য যে, বৃহত্তর ঈদগাঁও তথা ছয় ইউনিয়ন ও পাশ্ববর্তী খুটাখালী, রশিদ নগরের প্রত্যন্ত গ্রামাঞ্চলে হরেক রকমের এনজিও সংস্থা কিস্তির নামে দ্বিগুন সুদ আদায়ে মেতে উঠছে। এব্যাপারে উর্ধ্বতন কতৃপক্ষের হস্তক্ষেপ কামনা করছেন বিশাল এলাকার অসহায় লোকজন।

ফাইল ছবি

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।