২০ জুন, ২০২৪ | ৬ আষাঢ়, ১৪৩১ | ১৩ জিলহজ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  পাহাড় ধ্বসঃ ৮ রোহিঙ্গাসহ নিহত ১০   ●  উখিয়ার ক্যাম্পে পৃথক পাহাড় ধ্বসে ৭ রোহিঙ্গা সহ নিহত ৯   ●  রামুতে ঘুমন্ত স্বামী-স্ত্রীকে জবাই করে হত্যা   ●  উখিয়া-টেকনাফের ৫ শতাধিক তরুন-তরুণীকে কারিগরি প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ‘সুশীলন’   ●  খাদ্যে ভেজাল রোধে সামাজিক আন্দোলন দরকার : খাদ্যমন্ত্রী   ●  ইজিবাইকের ছাদে তুলে ৮ বছরের শিশু নির্যাতন ভিডিও ভাইরাল: তিন অভিযুক্ত গ্রেপ্তার   ●  ভবিষ্যতে প্রেস কাউন্সিলের সার্টিফিকেট ছাড়া সাংবাদিকতা করা যাবে না   ●  একমাসেও অধরা ঘাতক চক্র, চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের অগ্রগতি নিয়ে পরিবারে হতাশ   ●  সমুদ্রকেই ঘিরে কক্সবাজারের অর্থনীতি   ●  সামাজিক কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান

কক্সবাজারে মানবপাচারকারী ও মাদকের বিরুদ্ধে সাঁড়াশি অভিযান

কক্সবাজার শহর ও শহরতলীতে চলছে পুলিশের সাঁড়াশি অভিযান। মানব পাচারকারী, ছিনতাইকারী, মাদক বিক্রেতা ও নাশকতাকারীদের বিরুদ্ধে চলা এ অভিযানের ফলে অনেকটা স্বস্তির নি:শ্বাস পড়েছে এখানকার ব্যবসায়ী থেকে শুরু করে সাধারণ মানুষের মনে। গত এক সপ্তাহে চিহিৃত একাধিক পেশাদার ছিনতাইকারী ও মাদক বিক্রেতাকে আটক করা হয়েছে সদর মডেল থানা পুলিশের অভিযানে। বিশেষ করে কক্সবাজার সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ কাজী মতিউল ইসলাম ও অপারেশন অফিসার কাইয়ুম উদ্দিন চৌধুরীর নেতৃত্বে সপ্তাহ খানেক ধরে চলা সাঁড়াশি অভিযানের কারণে গা ঢাকা দিয়েছে অনেক সন্ত্রাসী। সপ্তাহ খানেক ধরে চলা অভিযানে আটককৃতদের মধ্যে রয়েছে জেলা ছাত্র শিবিরের সেক্রেটারী ও একাধিক নাশকতা মামলার আসামী আব্দুল আজিজ, পেশাদার ছিনতাইকারী শহরতলীর পাওয়ার হাউসের সোহেল রানা, শহরের বৈদ্যঘোনার মোহাম্মদ রানাকে। এ সময় সোহেলের কাছ থেকে একটি দেশীয় তৈরি এলজিও উদ্ধার করা হয়। অন্যদিকে মঙ্গলবার পর্যটন স্পট দরিয়ানগর থেকে পাচারের সময় মডেল থানার অপারেশন অফিসার কাইয়ুম উদ্দিন চৌধুরী ও উপ-পরিদর্শক শহিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ৪ জন মালয়েশিয়াগামী যাত্রী ও ২ জন দালালকে আটক করে। আটককৃত দালালেরা হলো- শহরের কলাতলী ঝরঝরি পাড়ার গোলাম আকবরের পুত্র মঞ্জুর আলম (৩০) ও বান্দরবান নাইক্ষ্যংছড়ি সোনাইছড়ির জারাইলছড়ির মৃত আসব উদ্দিনের পুত্র হাবিবুল্লাহ প্রকাশ জিয়াউর রহমান। এছাড়া একই দিন সদরের ইসলামপুর পশ্চিম ভিলেজার পাড়া থেকে ৫ কেজি গাঁজাসহ এক মহিলাকে আটক করে তদন্ত কেন্দ্রের পুলিশ। সদর মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ কাজী মতিউল ইসলাম বলেন-সন্ত্রাস, মাদক ও অপরাধীদের বিরুদ্ধে অভিযান অব্যাহত থাকবে। বিশেষ করে মানব পাচারকারীদের আটকের ক্ষেত্রে বিশেষ ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। পর্যটন শহর হিসেবে কক্সবাজারকে শান্ত রাখতে সকলের সহযোগিতাও কামনা করেন।

 

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।