১৪ জুলাই, ২০২৪ | ৩০ আষাঢ়, ১৪৩১ | ৭ মহর্‌রম, ১৪৪৬


শিরোনাম
  ●  স্বেচ্ছাসেবী কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা প্রদান    ●  চতুর্থবারের মতো শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট নির্বাচিত হলেন রোবায়েত   ●  সেন্টমার্টিনে ২ বিজিপি সদস্যসহ ৩৩ রোহিঙ্গা বোঝাই ট্রলার   ●  উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২   ●  উখিয়ায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি; কাঁচা ঘরবাড়ি, গ্রামীণ সড়ক লন্ডভন্ড   ●  উখিয়ায় কৃষি বিভাগের প্রণোদনা পেলেন ১৮০০ কৃষক /কৃষাণী   ●  আরসার জোন ও কিলিংগ্রুপ কমান্ডার আটক ৩   ●  পটিয়া প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত   ●  উখিয়ায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান মেটাচ্ছে সবজির চাহিদা   ●  বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির থাইংখালী সার্ভিস সেন্টারের ৬ষ্ঠ পিএফটি মিটিং অনুষ্ঠিত

কক্সবাজারে ‘জয় কারাতে একাডেমী’ ‘অদ্রিতা পালদের বেড়েছে আত্মবিশ্বাস ও শক্তি’

কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজের একাদশ শ্রের্ণীর ছাত্রী অদ্রিতা পাল। কলেজের পড়াশোনার পাশাপাশি ভর্তি হয়েছে ‘জয় কারাতে একাডেমী। এই ক্লাবে প্রশিক্ষণ হয় সাপ্তাহে চারদিন। এই ক্লাবে ভর্তির পর থেকে ধীরে ধীরে নিজের মধ্যে লক্ষ্য করছে অনেক ধরনের পরিবর্তন। বেড়েছে আত্মবিশ্বাস ও শক্তি।
অদ্রিতা পাল বলেন, সে আগের মতো দ্রুত ক্লান্ত বা হাঁপিয়ে যাই না। নিজের রাগের ওপর এক ধরনের নিয়ন্ত্রণ তৈরি হয়েছে। এখন আর একা চলতে ভয় লাগে না। যতটুকু প্রশিক্ষণ পেয়েছি তা প্রয়োগ করে নিজেকে রক্ষা করতে পারবো। এর সঙ্গে শারীরিক ফিটনেস ও আত্মবিশ্বাস বেড়েছে।
জয় কারাতে একাডেমী কর্তৃপক্ষ  বলছেন, সবাইকে আত্মবিশ্বাসী ও নিজেদের নিরাপত্তা কৌশল শেখাতে এই কারাতে শিখানো হচ্ছে। পাশাপাশি এই কারাতের মাধ্যমে যেমন শারীরিক ব্যায়াম হচ্ছে  মাদক ও মোবাইল আসক্তি থেকে দূরে রাখছে।
‘জয় কারাতে একাডেমী প্রশিক্ষক সেনসি জয় দেব পাল বলেন, আমাদের ক্লাবে ৮০ জন ছাত্র-ছাত্রী আছেন। এখানে অনেকেই বয়সে ছোট। বর্তমানে খেলার মাঠ না থাকায় ও নিজেদের আত্ম রক্ষায়  এই খেলায় যুক্ত হচ্ছেন অনেকেই। কারাতের মাধ্যমে মেয়েরা ইভটিজিং ও যেকোনো বিপদ থেকে নিজেকে রক্ষা করতে পারবে।
জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন বলেন, মেয়েদের আত্মবিশ্বাসী ও নিজেদের নিরাপত্তা কৌশল শেখাতে এই কারাতে কাজ করবে। এই কারাতের দিকে আমরা মনোযোগ দিচ্ছি। আমরা ইতিমধ্যে এটার সাফল্য পেয়েছি । আমাদের ক্রীড়া সংস্থার পক্ষ থেকে সবোচ্চ সহোযোগিতা করবো। পাশাপাশি এই কারাতে মাদক থেকে দূর ও আত্মরক্ষায় কাজ করে ।
অভিভাবকরা বলছেন, নিজেদের মেয়েদের ইভটিজিং ও যেকোনো বিপদ থেকে রক্ষা করতে এসব ক্লাবে ভর্তি করিয়েছেন।
শারমিন নামক এক অভিভাবক বলেন, তার মেয়ে আগে স্কুলে যেতে ভয় পেতো। এবং স্কুল থেকে পেরার সময় ইভটিজিংয়ের শিকার হতো। এখন কারাতে ভর্তি হাওয়ার পর থেকে সে অনেক আত্মবিশ্বাস হয়েছে। এখন সে নিজেকে নিজেই সেভ করতে পারে। এজন্য আমি একজন মেয়ের অভিভাবক হয়ে বলবো  সবাই যেন এখানে অংশ নেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।