১৪ এপ্রিল, ২০২৪ | ১ বৈশাখ, ১৪৩০ | ৪ শাওয়াল, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  আদালতে ফরেস্টার সাজ্জাদ হত্যার দায়স্বীকার সেই ডাম্পার চালক বাপ্পির   ●  ‘অভিযানে ক্ষুব্ধ, ফরেস্টার সাজ্জাদকে পূর্বপরিকল্পনায় হত্যা করা হয়’   ●  ফাঁসিয়াখালীতে পৃথক অভিযানে জবর দখল উচ্ছেদ, বালিবাহী ডাম্পার জব্দ   ●  অসহায়দের পাশে ‘রাবেয়া আলী ফাউন্ডেশন’   ●  ফরেস্টার সাজ্জাদ হত্যার মূল ঘাতক সেই বাপ্পী পুলিশের জালে   ●  ক্রাইম রিপোর্টার্স এসোসিয়েশন অব কক্সবাজার,ক্র্যাকের সভাপতি জসিম, সম্পাদক নিহাদ   ●  নতুন জামাতে রঙিন ১০০ শিশুর মুখ   ●  মহেশখালী উপজেলা আ’লীগ সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা আনোয়ার পাশা চৌধুরীর মৃত্যুতে জেলা আ’লীগের শোক   ●  পাহাড়ে শান্তি ফেরাতে যৌথ অভিযান   ●  নিরাপদ পেকুয়া গড়তে দলমত নির্বিশেষে সকলকে এক হতে হবে, ড. সজীব

কক্সবাজারে চেম্বার অফ কমার্সের কোটি টাকার খসড়া বাজেট প্রস্তাব

বিশেষ প্রতিবেদক:
কক্সবাজার চেম্বার অফ কমার্স এর পরিচালনা পরিষদের ঈদ পুনর্মিলনী ২০২২ পরবর্তী প্রতিষ্ঠানের বাৎসরিক বাজেট  ২০২২-২৩ নিয়ে আলোচনা সভা গত ১৬/০৭/২০২২ ইং তারিখ সন্ধ্যে সাত ঘটিকায় হোটেল সাইমন বীচ রিসোর্ট  এর সম্মেলন কক্ষে চেম্বার সভাপতি আবু মোরশেদ চৌধুরী এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত হয়।
সভার শুরুতে চেম্বার পরিচালক সাইফুল হক এর মাতা সাবেক সাংসদ খোরশেদ আরা হক এর মৃত্যুতে শোক প্রস্তাব আনা হয়। সভায় বিগত অর্থ বছরের এর অডিট রিপোর্ট উপস্থাপন পরবর্তীতে ২০২২- ২০২৩ অর্থবছরের জন্য খসড়া বাজেট পরিচালনা পরিষদের অনুমোদনের জন্য উপস্থাপিত হয়। সভাপতির অনুমতিক্রমে চেম্বার এর সদস্য সচিব নাছের মাহমুদ চলতি অর্থ বছরের জন্য মোট ১,৪৫,৫৫,০০০/- (এক কোটি পঁয়তাল্লিশ  লক্ষ পাঞ্চান্ন হাজার  টাকা) পরিষদে উপস্থাপন করেন। এতে ৩০শতাংশ চেম্বার এর নিজস্ব আয় এবং বাকি ৭০ শতাংশ জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক তহবিলের উৎস থেকে জোগান দেওয়া হবে বলে বাজেটে উল্লেখ করা হয়। তাছাড়া বিগত বছরে এবং করোনাকালীন সময় চেম্বার এর কার্যক্রমসহ বার্ষিক প্রতিবেদন পর্ষদ এর জ্ঞাতার্থে উপস্থাপিত হয়। চলতি অর্থ বছরে জেলা নারী উদ্যোক্তা উন্নয়ন, সিএসএমই এবং বাজার চাহিদা নিরূপণে যুব সমাজের দক্ষতা বৃদ্ধির ওপর বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করা হয়। চলতি বছরে চেম্বার এর নিজস্ব জায়গায় বহুতল ভবন তৈরির কর্মপরিকল্পনাও গ্রহণ করা হয়। উপস্থিত সদস্যবৃন্দ চেম্বার এর বাজেটকে যুগোপযোগী বলে সম্মতি প্রকাশ করেন যা পরবর্তীতে এ.জি.এম/ই.জি.এম এর মাধ্যমে পূর্ণাঙ্গ রূপ পাবে।
পরবর্তী আলোচনায় চেম্বার এর সিনিয়র সহ-সভাপতি মোঃ  সাবেদ উর  রহমান সুমু বলেন কক্সবাজার এর বহুমাত্রিক পর্যটন শিল্পকে এগিয়ে নেয়ার জন্য অংশীজন সংলাপের মাধ্যমে একটি কর্মপরিকল্পনা প্রণয়ন সময়ের দাবি এবং এর জন্য সরকার এবং এফবিসিসিআই এর সার্বিক সহযোগিতার কামনা করেন। সহ সভাপতি আবদুল খালেক বলেন স্থানীয় অর্থনীতিকে গতিশীল করার মাধ্যমে বেকার যুবসম্প্রদায়ের অর্থনৈতিকভাবে স্বাবলম্বী করার নুতন ক্ষেত্র সৃষ্টিতে চেম্বারের যথেষ্ট ভুমিকা রয়েছে। তাই  জেলা প্রশাসন, আর্থিক প্রতিষ্ঠানসহ সকল স্তরের ব্যবসায়ীদের সার্বিক সহযোগিতা প্রয়োজন অন্যথায় মাদকসহ বিভিন্ন অসামাজিক কার্যক্রমে যুবসমাজ জড়িত হয়ে পড়বে । চেম্বার পরিচালক এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী মৎস্য রপ্তানি কারক প্রতিষ্ঠান এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবেদ আহসান সাগর বলেন কক্সবাজারের অর্থনীতিতে মৎস্য শিল্পের অবদান অনস্বীকার্য। এই শিল্পে যুগোপযোগী করার লক্ষ্যে সরকারের পৃষ্ঠপোষকতা অত্যন্ত প্রয়োজন। তাছাড়া শুটকি আমাদের একটি ব্র্যান্ড । এই শিল্পের সাথে হাজার হাজার পরিবারের জীবন-জীবিকা নির্ভরশীল। বিদেশি শুটকি আমদানি বন্ধ না হলে এই শিল্প আলোর মুখ দেখবে না। চেম্বার পরিচালক এবং  ট্যুর অপারেটর ওনার্স এসোসিয়েশন এর সভাপতি রেজাউল করিম বলেন একটি যুগোপযোগী সমন্বিত ট্যুর অপারেশন নিশ্চিত করার  লক্ষে  জেলায় যে সকল প্রতিষ্ঠান ট্যুর অপারেটিং এর সাথে সম্পৃক্ত সকলকে জেলা প্রশাসন এর সহযোগিতায় মনিটরিং এবং প্রশিক্ষণের আওতায় আনা প্রয়োজন। চেম্বার পরিচালক এবং বিশিষ্ট ব্যবসায়ী শামসুল আলম আজিম হেলালি বলেন পর্যটকদের আকৃষ্ট করতে হলে জেলার রাস্তাঘাট সহ অবকাঠামো উন্নয়ন অপরিহার্য। পাশাপাশি  যানজট নিরসনে একটি সমন্বিত কর্মপরিকল্পনা প্রয়োজন। চেম্বার পরিচালক বিশিষ্ট ব্যবসায়ী আজমল হুদা বলেন জেলায় ইকুট্যুরিজম এবং কমিউনিটি ট্যুরিজমের অপার সম্ভাবনা থাকলেও এর বিকাশের অদ্যাবধি কোন ধরনের উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়নি। এই বিষয়ে প্রয়োজনে চেম্বার এবং জেলা প্রশাসন একটি সমন্বিত উদ্যোগ গ্রহণ করতে পারে। পরিচালক এ,আর,এম, শহিদুল ইসলাম রাসেল বলেন পর্যটক হচ্ছে আমাদের লক্ষী তাদের সুবিধার্থে যানবাহন থেকে শুরু করে হোটেল রেস্টুরেন্ট গুলোর একটি মান ভিত্তিক দৃশ্যমান মূল্য তালিকা থাকা প্রয়োজন। পরিচালক আবু হানিফ বলেন কক্সবাজার এর অনেক ব্যবসায়ী এখনো চেম্বার অফ কমার্স এর গুরুত্ব বুঝতে পারছেন না। উনাদের জন্য বিশেষ সচেতনতা মূলক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা যেতে পারে। পাশাপাশি যে সব কুচক্রী মহল মাঝে মাঝে চেম্বার এর চলমান কার্যক্রমকে বাধাগ্রস্ত করার জন্য  সচেষ্ট তাদের আইনের আওতায় আনার জন্য প্রশাসনের হস্তক্ষেপ কামনা করেন।
উপস্থিত সদস্যদের মধ্যে আরও বক্তব্য রাখেন পরিচালক সৈয়দ মোহাম্মদ আলী, উদয় শংকর পাল মিঠু, মোঃ নুরুজ্জামান, সাইফুল হক, সুপ্ত ভুষন বড়ুয়া, মেজবাহ উল্লাহ ভুট্টো, এইচ এম নুরুল আলম আফসারুল হক ।
সভার সমাপনী বক্তব্য জেলা চেম্বার অফ কমার্স  এর সভাপতি বলেন কক্সবাজার এর অর্থনীতির অন্যতম চালিকা শক্তি হচ্ছে লবণ শিল্প। পার্শ্ববর্তী দেশ গুলোর সাথে প্রতিযোগিতায় ঠিকে থাকতে হলে আধুনিক পদ্ধতিতে লবণ চাষের বিকল্প নাই। চাষিদের স্বার্থ সংরক্ষণসহ এই শিল্পকে যুগোপযোগী করতে হলে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষসহ স্থানীয় প্রশাসনে সহযোগিতার এবং  আরও আন্তরিকতা প্রয়োজন। পাশাপাশি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর আন্তরিক প্রচেষ্টায় কক্সবাজারে যে সমস্ত অর্থনৈতিক অঞ্চল প্রতিষ্ঠিত হচ্ছে তাকে ঘিরে ( ব্যাকওয়ার্ড লিংকেজ) বিশেষ এসএমই অঞ্চল সৃষ্টির জন্য সরকারের দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। তিনি সকল সদস্যদের সুস্বাস্থ্য এবং সহযোগিতা  কামনা করে সভার সমাপ্তি ঘোষণা করেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।