২২ মে, ২০২৪ | ৮ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ | ১৩ জিলকদ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলার প্রথম নির্বাচনে সহিংসতায় যুবক খুন; বসতবাড়ি ভাংচুরের অভিযোগ    ●  এভারকেয়ার হসপিটালের শিশু হৃদরোগ বিশেষজ্ঞ ডা. তাহেরা নাজরীন এখন কক্সবাজারে   ●  কালেক্টরেট চতুর্থ শ্রেণী কর্মচারী সমিতির সভাপতি আব্দুল হক, সম্পাদক নাজমুল   ●  ক্যাম্পের বাইরে সেমিনারে অংশ নিয়ে আটক ৩২ রোহিঙ্গা   ●  চেয়ারম্যান প্রার্থী সামসুল আলমের অভিযোগ;  ‘আমার কর্মীদের হুমকি-ধমকি দেয়া হচ্ছে’   ●  নির্বাচন সুষ্ঠু করতে সবকিছু কঠোর থাকবে, অনিয়ম হলেই ৯৯৯ অভিযোগ করা যাবে   ●  উখিয়া -টেকনাফে শাসরুদ্ধকর অভিযানঃ  জি থ্রি রাইফেল, শুটারগান ও গুলিসহ গ্রেপ্তার ৫   ●  রোহিঙ্গা ক্যাম্পে হেড মাঝিকে  তুলে নিয়ে   গুলি করে হত্যা   ●  যুগান্তর কক্সবাজার প্রতিনিধি জসিমের পিতৃবিয়োগ   ●  জোয়ারিয়ানালায় কিশোর গ্যাংয়ের হামলায় আহত রামু কলেজের অফিস সহায়ক

কক্সবাজারে আটকের পর আসামির মৃত্যু

কক্সবাজার প্রতিনিধি:
কক্সবাজারের ঈদগাঁওতে অভিযানের সময় ‘অসুস্থ হয়ে পড়া’ পলাতক এক আসামির মৃত্যু হয়েছে। এই ঘটনা নিয়ে ধ্রমজাল সৃষ্টি হয়েছে।
পুলিশ জানিয়েছে, নুরুল কবির লেদু গত ২০১৯ সালের ৪ ফেব্রুয়ারী মারামারির ঘটনায় কক্সবাজার সদর থানায় দায়ের হওয়া একটি মামলার এজাহারভূক্ত চার নম্বর আসামি। ওই মামলায় তিনি দীর্ঘদিন ধরে পলাতক ছিলেন।
রোববার ভোর রাতে নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ইউছুপেরখিল এলাকায় বাড়ীতে পলাতক আসামি নুরুল কবির লেদু অবস্থান করছে খবরে পুলিশের একটি দল অভিযান চালায়। এসময় পরিবারের সদস্যরা আসামি বুকে ব্যাথা জনিত অসুস্থতায় ভূগছেন বলে পুলিশকে অবহিত করে।
পরে পুলিশের গাড়ী যোগে আসামি নুরুল কবির লেদুকে দ্রুত রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে আসে। অবস্থা আশংকাজনক হওয়ায় কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে প্রেরণ করেন।
পরে কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন বলে জানান ওসি।
ঈদগাঁও থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আব্দুল হালিম রোববার ভোর রাতে রামু উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এ আসামির মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেন।
মারা যাওয়া আসামি নুরুল কবির লেদু (৫৫) নবগঠিত ঈদগাঁও উপজেলার ইসলামাবাদ ইউনিয়নের ইউছুপেরখিল এলাকার মৃত সুলতান আহমদ এর ছেলে।
কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতালের আবাসিক চিকিৎসক (আরএমও) আশিকুর রহমান বলেন, ভোরে পুলিশ অসুস্থ এক আসামিকে হাসপাতালে নিয়ে আসে। কিন্তু হাসপাতালে আনার আগেই তার মৃত্যু ঘটে।
মৃতের শরীরের বাইরে আঘাতের কোন ধরণের চিহ্ন দেখা যায়নি। তারপরও শরীরের ভিতরে কোন আঘাতের চিহ্ন রয়েছে কিনা তা ময়নাতদন্তের পর নিশ্চিত হওয়া যাবে  বলেন, কর্তব্যরত এ চিকিৎসক।
মৃতের চাচা নুরুল আলম বলেন, তার ভাইপো নুরুল কবির লেদু একটি মামলায় পলাতক আসামি ছিল। পুলিশ গ্রেপ্তারে অভিযানকালে সে বুকে ব্যাথা জনিত অসুস্থতা অনুভব করছিল। পরে পুলিশের গাড়ী যোগে হাসপাতালে নেওয়ার পর তার মৃত্যু হয়েছে। মৃতদেহটি ময়নাতদন্তের জন্য কক্সবাজার জেলা সদর হাসপাতাল মর্গে রাখা হয়েছে বলে জানান ওসি আব্দুল হালিম।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।