১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

উখিয়া হাসপাতালের টেন্ডার নিয়ে ঠিকাদারদের মধ্যে চরম উত্তেজনা

shomoy
উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পথ্য সরবরাহের টেন্ডার নিয়ে ঠিকাদারদের মধ্যে চরম উত্তেজনা বিরাজ করছে। গতকাল বৃহস্পতিবার বেলা ১১ টার দিকে ৭/৮ জনের একদল ঠিকাদার হাসপাতালে উপস্থিত হয়ে সরকারি নীতিমালা অনুযায়ী পুন:টেন্ডার আহ্বানের দাবী জানিয়ে কতিপয় কর্মচারীদের প্রতি বিরূপ মন্তব্য করতে দেখা গেছে।
ঠিকাদারদের অভিযোগ, প্রতি বছর বছর গোপনে টেন্ডার আহ্বানের মাধ্যমে হাসপাতালের অফিস সহকারি ফরিদ আহমদ ও স্যানিটারী ইন্সপেক্টরের দায়িত্বে নিয়োজিত নুরুল আলম ঐশী এন্টারপ্রাইজের নাম ভাঙ্গিয়ে পথ্য সরবরাহের ঠিকাদারী হাতিয়ে নিয়ে কাড়ি কাড়ি টাকা লুটপাট করে আসছিল। হাসপাতালের তালিকাভূক্ত ঠিকাদার গয়ালমারা গ্রামের ফরিদুল আলম অভিযোগ করে জানান, চলতি অর্থ বছরে পথ্য সরবরাহের দরপত্র আহ্বান করে গোপনে টেন্ডার হাতিয়ে নেওয়ার চেষ্টা করলে সিভিল সার্জন বরাবরে অভিযোগ করা হয়। এঘটনা নিয়ে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ উক্ত টেন্ডার স্থগিত করার নাম ভাঙ্গিয়ে গোপনে তাদের পছন্দের লোকজনকে পথ্য সরবরাহের কার্যাদেশ দিয়ে দেওয়ার অপচেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে।
ঠিকাদার ও রতœাপালং ইউনিয়ন আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলমগীর প্রতিবাদ করে জানান, পুন: টেন্ডার আহ্বানের মাধ্যমে সর্বনিু দরদাতাকে কার্যাদেশ দেওয়া না হলে অফিস সহকারি ও স্যানিটারী ইন্সপেক্টরকে এ হাসপাতাল থেকে বিদায় নিয়ে অন্যত্রে চলে যেতে হবে। তাদের কারণে হাসপাতালে সার্বিক সমস্যার সৃষ্টি হচ্ছে। এসময় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি ছৈয়দ মোহাম্মদ নোমানসহ ১০/১২ জন ঠিকাদার প্রতিবাদ জানাতে দেখা গেছে। জানতে চাওয়া হলে হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ডা. রবিউর রহমান রবি জানান, স্বাস্থ্য কর্মকর্তা ঢাকায় ট্রেনিংয়ে আছেন। তাই এব্যাপারে তিনি কিছু মন্তব্য করতে অপারগতা প্রকাশ করেন। তবে অভিযুক্ত অফিস সহকারি ফরিদ আহমদ বিগত অর্থ বছরে হাসপাতালে পথ্য সরবরাহের কথা স্বীকার করলেও ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান তার নয় বলে দাবী করেন। এব্যাপারে জানতে কক্সবাজার সিভিল সার্জন ডা. মখলেছূর রহমান খানের সাথে যোগাযোগ করা হলে সংযোগ পাওয়া যায়নি। তবে সিভিল সার্জন অফিসের একজন কর্মচারী পুন: টেন্ডার আহ্বানের কথাটি নিশ্চিত করেছেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।