১৬ জুন, ২০২৪ | ২ আষাঢ়, ১৪৩১ | ৯ জিলহজ, ১৪৪৫


শিরোনাম
  ●  উখিয়া-টেকনাফের ৫ শতাধিক তরুন-তরুণীকে কারিগরি প্রশিক্ষণ দিচ্ছে ‘সুশীলন’   ●  খাদ্যে ভেজাল রোধে সামাজিক আন্দোলন দরকার : খাদ্যমন্ত্রী   ●  ইজিবাইকের ছাদে তুলে ৮ বছরের শিশু নির্যাতন ভিডিও ভাইরাল: তিন অভিযুক্ত গ্রেপ্তার   ●  ভবিষ্যতে প্রেস কাউন্সিলের সার্টিফিকেট ছাড়া সাংবাদিকতা করা যাবে না   ●  একমাসেও অধরা ঘাতক চক্র, চাঞ্চল্যকর হত্যাকাণ্ডের অগ্রগতি নিয়ে পরিবারে হতাশ   ●  সমুদ্রকেই ঘিরে কক্সবাজারের অর্থনীতি   ●  সামাজিক কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা স্মারক প্রদান   ●  ডা.আবু বকর ছিদ্দিক এর চতুর্থ  মৃত্যুবার্ষিকী শনিবার    ●  কক্সবাজারে আইএসইসি প্রকল্পের অধীনে যুবক-যুবতীদের প্রশিক্ষণ ও সনদ বিতরণ    ●  কক্সবাজারে শ্রেষ্ঠ সার্কেল রাসেল, ওসি মুহাম্মদ ওসমান গনি 

উখিয়া বনবিটের ৭টি গর্জন গাছ লুট

SAMSUNG CAMERA PICTURES
উখিয়া বন রেঞ্জের অস্তিত্বহীন উয়ালা বনবিটের ৭টি গর্জন মাদার ট্রি রাতের আধাঁরে লুট করে নিয়ে গেছে দুর্বৃত্তরা। উক্ত বনবিট কার্যালয়টি জবর দখল হয়ে অস্তিত্বহীন অবস্থায় একটি জরাঝির্ণ নামমাত্র কুড়ে ঘর থাকলেও প্রায় অর্ধ শতাধিক গর্জন মাদার ট্রি সংরক্ষণ করা হয়েছিল। গত বুধবার ও বৃহস্পতিবার দু’রাতে পর পর ৭টি মাদার ট্রি চুরি হয়ে যাওয়ার ঘটনা নিয়ে গ্রামবাসীর মধ্যে উদ্বেগ সৃষ্টি হলেও সংশ্লিষ্ট বিট কর্মকর্তার কোন মাথা ব্যাথ্যা নেই। জানতে চাওয়া হলে ওই বনবিট কর্মকর্তা মনিরুজ্জামান মিয়া জানান, দুর্বৃত্তরা ৭টি গাছ চুরি করে নিয়ে গেছে। তবে এলাকার প্রত্যক্ষদর্শী নবী হোছন ড্রাইভার ও স্থানীয় প্রাথমিক শিক্ষক মাস্টার জানে আলম বলেন, আগের দিন সন্ধ্যায় বিট কর্মকর্তা ২/৩জন কাঠ চোরের সাথে কথা বলতে দেখা গেছে। পরদিন সকালে গিয়ে দেখা যায়, ৭টি কাটা গাছের গোড়ালি। সহকারি বন সংরক্ষক রেজাউল করিম চৌধুরী ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ৭টি গাছ লুটের সত্যতা পেয়েছে বলে সাংবাদিকদের জানিয়েছেন। উল্লেখ্য থাকে যে, প্রায় সাড়ে ৩ হাজার একর বনভূমি নিয়ে এ উয়ালা বিট কার্যালয়টি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৫২ সনে। বন সম্পদ লুটপাট ও বনভূমি জবর দখলের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকার ফলে বর্তমানে বিট কর্মকর্তার কার্যালয়টি অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। স্থানীয়রা বলছেন, অদূর ভবিষ্যতে এ বনবিট অফিসটিও জবর দখল হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।