১৪ জুলাই, ২০২৪ | ৩০ আষাঢ়, ১৪৩১ | ৭ মহর্‌রম, ১৪৪৬


শিরোনাম
  ●  স্বেচ্ছাসেবী কাজে বিশেষ অবদানের জন্য হাসিঘর ফাউন্ডেশনকে সম্মাননা প্রদান    ●  চতুর্থবারের মতো শ্রেষ্ঠ সার্জেন্ট নির্বাচিত হলেন রোবায়েত   ●  সেন্টমার্টিনে ২ বিজিপি সদস্যসহ ৩৩ রোহিঙ্গা বোঝাই ট্রলার   ●  উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্পে অস্ত্রসহ গ্রেপ্তার ২   ●  উখিয়ায় ৩ হাজার পরিবার পানিবন্দি; কাঁচা ঘরবাড়ি, গ্রামীণ সড়ক লন্ডভন্ড   ●  উখিয়ায় কৃষি বিভাগের প্রণোদনা পেলেন ১৮০০ কৃষক /কৃষাণী   ●  আরসার জোন ও কিলিংগ্রুপ কমান্ডার আটক ৩   ●  পটিয়া প্রেস ক্লাবের নতুন কমিটি গঠিত   ●  উখিয়ায় পারিবারিক পুষ্টি বাগান মেটাচ্ছে সবজির চাহিদা   ●  বন্ধু সোশ্যাল ওয়েলফেয়ার সোসাইটির থাইংখালী সার্ভিস সেন্টারের ৬ষ্ঠ পিএফটি মিটিং অনুষ্ঠিত

উখিয়ায় বোরো চাষাবাদ ফেঁটে চৌচির : উৎপাদন ব্যাহতের আশংকা

UKHIYA PIC 23.03.2015
উখিয়ার খাল-বিল, নদী-নালায় পানি নেই। দীর্ঘদিন যাবৎ অনাবৃষ্টির ফলে বি¯তৃর্ণ বোরো চাষাবাদ ফেঁটে চৌচির হয়ে গেছে। ভূগর্ভস্থ পানির স্তর আশংকা জনক ভাবে গভীরে চলে যাওয়ার কারণে সেচ পাম্প গুলোতে পানি না পেয়ে কৃষকেরা হতাশ হয়ে পড়েছে। কৃষি কর্মকর্তা বলছেন, অনাবৃষ্টির ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকলে বোরো উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা অর্জিত না হওয়ার আশংকা রয়েছে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা যায়, চলতি মৌসুমে ৬ হাজার ২শ’ হেক্টর জমিতে বোরো চাষাবাদের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও ৬ হাজার ২শ’ ৮৫ হেক্টর জমিতে কৃষকেরা চাষাবাদ করেছে। সেচ সংকট নিবারনের জন্য পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির চাহিদা অনুপাতে অনেকেই অতিরিক্ত বিদ্যুৎবিল পরিশোধ করে সেচ সংযোগ নিয়েছে। এসমস্ত চাষাবাদে পানি সরবরাহের জন্য ডিজেল চালিত ১৪০টি ও বিদ্যুৎ চালিত ১ হাজার ৮শ’ ৬৭ সেচ পাম্প বসানো হলেও চাষাবাদে থোর পড়ার এ মোক্ষম সময়ে অধিকাংশ সেচ পাম্পে পানি পাওয়া যাচ্ছে না বলে কৃষকদের অভিযোগ।
সোমবার রাজাপালং ইউনিয়নের পশ্চিম ডিগলিয়া, সিকদার বিল, কামারিয়ারবিল, গয়ালমারা, চাকবৈঠা, হারাশিয়া, দোছরী, মাইল্যারকুলসহ বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে স্থানীয় কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা যায়, অন্যান্য বছরের তুলনায় চলতি বোরো মৌসুমে মারাত্মক পানি সংকটের সৃষ্টি হয়েছে। এলাকার ক্ষুদ্রচাষী নজু মিয়া, বর্গাচাষী আলী মিয়াসহ একাধিক লোকজন জানান, তারা কানি প্রতি ৫ হাজার টাকা লাগিয়তে জমি নিয়ে বোরো চাষাবাদ করেছে। জমির পরিচর্যা থেকে শুরু করে এ পর্যন্ত তাদের আরো প্রায় ৩/৪ হাজার টাকা অতিরিক্ত পুঁজি বিনিয়োগ করতে হয়েছে। কৃষকেরা জানান, চলতি মৌসুমে পর্যাপ্ত সার সরবরাহ থাকলেও পানি সংকটের কারণে তারা লক্ষ্যমাত্রা উৎপাদন নিয়ে আশংকা প্রকাশ করছে। বিকল্প কোন ব্যবস্থা না থাকায় কৃষকদের চাষাবাদের এ করুণচিত্র চেয়ে থাকা ছাড়া আর কোন গত্যন্তর নেই বলে অনেকেই হতাশ কণ্ঠে মত প্রকাশ করতে দেখা গেছে।
জানা গেছে, এ উপজেলার প্রায় ১৫ হাজার ১৮ জন কৃষক চিরাচরিত প্রথা অনুযায়ী বোরো চাষাবাদ করে জীবন ধারণ করে আসছিল। তন্মমধ্যে প্রান্তিক চাষী সাড়ে ৪ হাজার, ক্ষুদ্র চাষী ৮ হাজার, বর্গা চাষী আড়াই হাজার, মাঝারী চাষী ১৫ জন ও বড় চাষী মাত্র ৩ জন। অধিকতর ভূমিহীন কৃষকেরা ধারদেনা করে প্রতিবছর বোরো চাষাবাদ করে আসার ধারাবাহিকতায় চলতি মৌসুমেও তারা অনেক আশা আঙ্খাকা নিয়ে বোরো চাষাবাদে বিনিয়োগ করেছে। ঘিলাতলী পাড়া গ্রামের বড় চাষী (যারা ১৮ কানি জমির উপরে বোরো চাষাবাদ করে থাকেন) হাজী আব্দুর রহমান জানান, আরো কয়েকদিন বৃষ্টি না হলে ক্ষুদ্র ও মাঝারি পরিবারে ৩ হাজার ২শ’ চাষী কৃষক আর্থিক ভাবে মারাত্মক ক্ষতিগ্রস্থ হতে পারে।
উপজেলা জনস্বাস্থ্য প্রকৌশলী ইকবাল হোসেন জানান, খাল-বিল, নদী-নালার শুকিয়ে যাওয়ার কারণে সেচ পাম্প গুলোতেও পানি সংকেটর সৃষ্টি হয়েছে। তিনি বলেন, বর্তমানে প্রায় ১২০ ফুট গভীরে পানির অবস্থান রয়েছে। এখানে যে সমস্ত সেচ পাম্প গুলো রয়েছে ওই সমস্ত সেচ পাম্পের গভীরতা ৮০/৮৫ ফুট। তাই অধিকাংশ সেচ পাম্পে পানি পাওয়া যাচ্ছে না। উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শংকর কুমার মজুমদার জানান, বৃষ্টি না হওয়ার কারণে বোরো চাষাবাদে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। তিনি অধিকাংশ সেচ পাম্প অচল হয়ে পড়ার কথা স্বীকার করে বলেন, বৃষ্টি না হলে বোরো উৎপাদন ব্যাহত হওয়ার আশংকা রয়েছে।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।