২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৯ মাঘ, ১৪২৯ | ১০ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

উখিয়ায় পলিথিনের আড়ালে নির্বিচারে পাহাড় কাটা চলছে

UKHIYA PIC 31.03.2015.psd
পাহাড়কাটা, বনসম্পদ ধ্বংস ও আগুন দিয়ে পুড়িয়ে ফেলা, বালু উত্তোলনসহ যত্রতত্র ইটভাটা তৈরি করে পরিবেশ দূষণ করলেও পরিবেশ আইনে মামলা হচ্ছে না। মান্দাতার আমলের বন আইনে মামলা রুজু করে বনকর্তা ব্যক্তিরা তাদের দায়িত্ব শেষ করায় অভিযুক্তরা আদালতের বারান্দা থেকে জামিনে মুক্তি পেয়ে যাচ্ছে। যার ফলে বেপরোয়া হয়ে উঠেছে বনখেকো দুর্বৃত্তের দল। সরকারি বনভূমির পাহাড় কেটে মাটির পাচারের ধারাবাহিকতা অব্যাহত থাকার ফলে উখিয়ার বনভূমি বিরাণভূমিতে পরিণত হচ্ছে।
সূত্রমতে এ উপজেলার জালিয়াপালং ইউনিয়নের ইনানী, সোনাইছড়ি, হরিণমারা, হলদিয়া, হাজির পাড়া, দোছরী, মধুরছড়া, লম্বাশিয়া, পালংখালী ইউনিয়নের তেলখোলা, মোচারখোলা, তাজনির মারখোলা, থাইংখালী, নলবনিয়া, রহমতের বিল, ধামনখালী, বালুখালী, শিয়াল্যাপাড়া, হাতিরঢেরা প্রভৃতি এলাকা জুড়ে পাহাড় কেটে বনভূমির শ্রেণি পরিবর্তনের হিড়িক পড়েছে। মাঝে মধ্যে বনকর্তা ব্যাক্তিরা অভিযান চালিয়ে হাতে গুনা কয়েকজন দুর্বৃত্তের বিরুদ্ধে বন আইনে আসামী করলেও বৃহত্তর অপরাধীচক্র ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যাচ্ছে। স্থানীয় গ্রামবাসীর অভিযোগের ভিত্তিতে গতকাল মঙ্গলবার সরেজমিন পালংখালী ইউনিয়নের ধামনখালী এলাকা ঘুরে দেখা যায়, প্রায় ২০ একরেরও অধিক বিশাল পাহাড় কর্তন করে বনভূমির শ্রেণি পরিবর্তন করা হচ্ছে। স্থানীয়দের অভিযোগ থাইংখালী বিট কর্মকর্তা আবদুল মন্নান অবৈধ বালু উত্তোলনকারীদের নিকট থেকে গাড়ি প্রতি ২শ’ টাকা করে উৎকোচ নিয়ে থাকে। যার ফলে বালি উত্তোলনের মহোৎসব চলছে।
জানতে চাওয়া হলে কামাল নামের এক যুবক বললেন, এ পাহাড়টি ব্যক্তিমালিকানাধীন জোত জমি। বসতবাড়ি নির্মাণ করার জন্য পাহাড় কাটা হচ্ছে। পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে কেন জানতে চাওয়া হলে ওই যুবক বলেন, সরকারি বিভিন্ন লোকজন এসে বিরক্ত করে, তাই পলিথিন দিয়ে ঢেকে রাখা হয়েছে। এব্যাপারে উখিয়ার ঘাট বনবিট কর্মকর্তা রুহুল আমিন জানান, ওই এলাকাটি তার বনবিটের পড়েনি বিধায় পাহাড় কাটার ব্যাপারে তার জানার কথা নয়। থাইংখালী বনবিট কর্মকর্তা আব্দুল মন্নান পাহাড় কেটে বনভূমির শ্রেণি পরিবর্তন করার সত্যতা স্বীকার করে বলেন, তাকে জমির দলিল পত্র নিয়ে আসতে বলা হয়েছে। যদি বনভূমির জায়গা হয়ে থাকে তাহলে তার বিরুদ্ধে বন আইনে মামলা রুজু করা হবে।
কক্সবাজার পরিবেশ আন্দোলনের সভাপতি ফজলুল কাদের চৌধুরী বলেন, তারা বনভূমি রক্ষা ও খাল থেকে বালি উত্তোলন প্রতিরোধ সহ অবৈধ ইট ভাটার বিরুদ্ধে কাজ করে আসছে। পাহাড় কাটার বিষয়টি সরেজমিন তদন্ত করে ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বস্ত করেন। উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা মোঃ ইব্রাহিম মিয়া জানান, পাহাড় কর্তন প্রতিরোধে স্ব স্ব বনবিট কর্মকর্তাদের তৎপর থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তিনি ধামনখালীর পাহাড় কাটার ঘটনাটি সরেজমিন তদন্ত করে আইনী ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বস্ত করেন। পরিবেশ আইনে কেন মামলা হচ্ছে না জানতে চাওয়া হলে কক্সবাজার পরিবেশ অধিদপ্তরের সহকারি পরিচালক সর্দার শরিফুল ইসলাম জানান, সুনির্দিষ্ট অভিযোগ ফেলে তারা পরিবেশ আইনে মামলা করতে বাধ্য।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।