১ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৮ মাঘ, ১৪২৯ | ৯ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ   ●  সেন্টমার্টিনে রিসোর্ট নির্মাণ কাজ বন্ধের নির্দেশ দিলেন পরিবেশ অধিদপ্তর

উখিয়ায় চাঁদাবাজী মামলায় ইউপি সদস্য সহ আটক-৩

atok
কক্সবাজারের উখিয়ার জালিয়াপালং ইউনিয়ন পরিষদের ইউপি সদস্য ও বিএনপি নেতা সোলতান আহমদ সহ ৩ জনকে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। উখিয়া থানায় দায়েরকৃত একটি চাঁদাবাজী মামলায় গতকাল রোববার সকাল ১০ টায় কক্সবাজার জুডিশিয়াল ম্যাজিষ্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পন করতে গেলে আদালত তাদেরকে জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেছেন। উখিয়া থানার মামলা নং-০৯, তাং ১১/০৩/১৫ইং।
জানা গেছে, গত ১১ মার্চ বিকাল ৪ টার দিকে উক্ত ইউনিয়নের ছেপটখালী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ের রাস্তা ব্রিকসলিং ও বক্স কালভার্ট নির্মাণ কাজে বাঁধা দেওয়া, ৩০ হাজার টাকা চাঁদাবাজী দাবী, একই ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা ইউপি সদস্য জাহানারা বেগম ও তার স্বামী ফরিদ আলমকে মারধর করে গুরুতর আহত করে। এ ঘটনায় ইউপি সদস্যা জাহানারা বেগম বাদী হয়ে ৯নং ওয়ার্ড ইউপি সদস্য বিএনপি নেতা ও মানবপাচারকারীর গডফাদার ও ২০১২ সালের উখিয়ায় বৌদ্ধমন্দিরে হামলায় মামলার অন্যতম আসামী, এলাকার শীর্ষ সন্ত্রাসী সোলতান মেম্বার ও তার সহযোগি মনখালী এলাকার ত্রাস নামে খ্যাত একাধিক মামলার আসামী নূরুল আবছার প্রঃ ধইল্যা ডাকাত ও আব্দুল করিমের বিরুদ্ধে উখিয়া থানায় একটি চাঁদাবাজী ও মারধরের অভিযোগে থানায় মামলা দায়ের করেন। গতকাল রোববার তারা আদালতে আত্মসমর্পন করতে গেলে আদালত তাদের জামিন নামঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণ করেন। উল্লেখ্য আটককৃত ৩ জন উখিয়ার উপকুলীয় জালিয়াপালং ইউনিয়নের মনখালী গ্রামের মৃত গোলাম শরিফের ছেলে বলে জানা গেছে। মামলার বাদী ইউপি সদস্য জাহানারা বেগম বলেন দীর্ঘদিন পরে হলেও উপকূলের শীর্ষ চাঁদাবাজরা গ্রেপ্তার হওয়ায় এলাকায় স্বস্তি ফিরে এসেছে। বাকী ৩ আসামীকে শীঘ্রই গ্রেপ্তারের দাবী জানান।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।