২ ফেব্রুয়ারি, ২০২৩ | ১৯ মাঘ, ১৪২৯ | ১০ রজব, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  প্রান্তিক জনগোষ্ঠীর জীবনমানোন্নয়নে কক্সবাজার পৌর এলাকায় চলছে দরিদ্রবান্ধব নগর পরিকল্পনা ও উন্নয়ন কাজ   ●  পরিবেশ অধিদপ্তরের অভিযানে নিষিদ্ধ পলিথিন, হাইড্রোলিক হর্ণ জব্দ, জরিমানা   ●  বঙ্গবন্ধু ছিলেন বিশ্ব শ্রেষ্ঠ জাতীয়তাবাদের নেতা   ●  হাতের কব্জির রগ কেটে মোবাইল-ল্যাপটপ ছিনতাই   ●  কক্সবাজারে ইয়াবার মামলায় ৮ রোহিঙ্গার যাবজ্জীবন   ●  লোহাগাড়ায় পুলিশ কর্মকর্তার পরিবারকে ‘পেট্রোলের আগুনে’ পুড়িয়ে মারার চেষ্টা!   ●  চকরিয়ার সাহারবিলে সড়ক উন্নয়ন কাজ পরিদর্শন করলেন এমপি জাফর আলম   ●  রাইজিংবিডির বর্ষাসেরা প্রতিবেদক তারেককে আরইউসির শুভেচ্ছা   ●  স্ট্রীটফুড ও ড্রাই ফিস প্রশিক্ষাণার্থীদের মধ্যে সার্টিফিকেট বিতরণ ও সাপোর্ট প্রদান   ●  রামুতে দুই শতাধিক মানুষ বিনামূল্যে পেল স্বাস্থ্যসেবা ও ওষুধ

ঈদগাঁওতে প্রসূতি নারীরা সুচিকিৎসা থেকে বঞ্চিত

p2014011423
কক্সবাজার সদর উপজেলার ঈদগাঁও’র ছয় ইউনিয়নের প্রসূতি নারীরা সু-চিকিৎসা থেকে বঞ্চিত হয়ে পড়েছে। চাহিদা মোতাবেক অভিজ্ঞ মহিলা ডাক্তার স্বল্পতা ও চেক আপে বিড়ম্বনার কারণে এ অবস্থায় শিকার হচ্ছে বলে জানা যায়। একাধিক সূত্রে প্রকাশ, বৃহত্তর ঈদগাঁও তথা ৬ ইউনিয়ন-  ঈদগাঁও, জালালাবাদ, ইসলামাবাদ, ইসলাপুর, পোকখালী, চৌফদলদন্ডীর গর্ভবর্তীর মহিলারা চেক-আপ সহ নানা সমস্যা সমাধানের প্রয়োজনীয় সুযোগ সুবিধা থেকে বঞ্চিত। কিছু মহিলা দীর্ঘ কষ্টের বিনিময়ে ঈদগাঁও এলাকার বাইরে বিভিন্ন হাসপাতালে চেক-আপ সুবিধা পেলেও একাধিক মহিলাদের নিতান্তই নানা প্রাইভেট পাসপাতালে ধর্ণা দিতে হচ্ছে। এতে করে, একদিকে অনভিজ্ঞ ডাক্তারের চিকিৎসা নিতে হয়, অন্যদিকে বেশি টাকাও গুনতে হয়। সন্তান প্রসবকালীন কোন প্রাইভেট হাসপাতালে ভর্তি হলেই করা হয় সিজার অপারেশন। মারাত্মক জীবনের মরণ ঝুঁকি নিয়ে কাটাছেড়ার কাজ সম্পন্ন করে ফেলেন। এতে করে, রোগী ও নব জাতকের অবস্থা দ্বিগুন আকারে বেগতিক হয়ে উঠে। এক পর্যায়ে নবজাতক বা রোগীরও মৃত্যু ঘটে। ঈদগাঁও এলাকায় এসব ঘটনা ঘটে চলছে। নানা সূত্রে প্রকাশ, অপারেশন করতে হলে একজন এনস্থেসিয়া ডাক্তার ও গাইনোকোলজিষ্ট অবশ্যই প্রয়োজন। তাছাড়া অপারেশন থিয়েটারের অনুমতি ও আনুষাঙ্গিক সরঞ্জাম থাকা প্রয়োজন হলেও ঈদগাঁওতে এসব ছাড়াই গর্ভবর্তী মহিলাদের তড়িগড়ি করে অপারেশন করা হয়। এই নিয়ে এক শ্রেণীর অসাধু ব্যবসায়ীরা গলাকাটা ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। ঈদগাঁওতে এধরণের বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে এসব বাণিজ্য চালিয়ে আসলেও সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ কোন প্রকার ব্যবস্থা নিচ্ছে না। যার ফলে বাড়ছে মা- শিশুর মৃত্যু হার। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিভিন্ন ইউনিয়নের মহিলাদের মতে, প্রতি মাসে চেক-আপ করার পর ফের মোটা টাকা বিনিময়ে সিজার সারতে হয়। আবার ঈদগাঁওতে প্রয়োজনীয় সুবিধা সম্পন্ন গর্ভবর্তীর মহিলাদের চেক-আপ করার প্রতিষ্ঠান নেই। অন্যদিকে ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকারি ভাবে গর্ভবর্তী মহিলাদের বিনামূল্যে  চেকআপ সুযোগ সুবিধার জন্য মাঠ কর্মীদের দায়িত্ব থাকলেও তারা এসব কাজ থেকে বহুদূরে সরে দাড়িয়েছে বলে জানান অনেকে।

ছবি সংগ্রীহীত

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।