৮ আগস্ট, ২০২২ | ২৪ শ্রাবণ, ১৪২৯ | ৯ মহর্‌রম, ১৪৪৪


শিরোনাম
  ●  বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর ভলিবল প্রতিযোগিতায় ১১ পদাতিক ডিভিশন চ্যাম্পিয়ন   ●  কুতুবদিয়ায় মাদক মামলার পলাতক আসামী আবদুল মান্নান গ্রেফতার   ●  ‘কোনো অন্যায়ের কাছে সাংবাদিকরা মাথা নত করবে না’   ●  শেখ কামালের জন্মদিনে জেলা প্রশাসন বনাম কক্সবাজার পৌরসভা একাদশের প্রীতি ফুটবল ম্যাচ ড্র   ●  শেখ কামালের জন্মদিনে পৌর স্বেচ্ছাসেবকলীগের আলোচনা সভা দোয়া মাহফিল ও ক্রীড়া সামগ্রী বিতরণ   ●  শেখ কামালের জন্মদিনে শ্রদ্ধা জানালেন হলদিয়াপালং আওয়ামীলীগ   ●  প্রকাশিত সংবাদের প্রতিবাদ ও ব্যাখ্যা   ●  সামাজিক বনায়নে ভাগ্য বদল ১৬৮ জন উপকারভোগীর   ●  নীল নকশা   ●  জালিয়াপালংয়ে সংবাদ সংগ্রহে গিয়ে হামলার শিকার সংবাদকর্মী ইমরান

আরও প্রশস্ত হচ্ছে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক

কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক আরও প্রশস্ত করা হবে। এ লক্ষ্যে এক হাজার ৯২ কোটি ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে ‘কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক প্রশস্তকরণ’ প্রকল্পের অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে ওই সড়কের ৩০ দশমিক ৪০ কিলোমিটার প্রশস্তকরণ এবং রেজু খালের উপর দুই লেন বিশিষ্ট ৩০৫ মিটার দীর্ঘ দৃষ্টিনন্দন সেতু নির্মাণ করা হবে। এর মাধ্যমে নিরাপদ যোগাযোগ ব্যবস্থা গড়ে তোলা, পর্যটন শিল্পের প্রসার এবং প্রকল্প এলাকার আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন হবে।

এই প্রকল্পসহ ১০টি প্রকল্প অনুমোদন করেছে জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটি (একনেক)। এতে ব্যয় ধরা হয়েছে দুই হাজার ১১৬ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। এর মধ্যে সরকারি অর্থায়ন এক হাজার ৮৭৫ কোটি ৫৭ লাখ টাকা ও বৈদেশিক অর্থায়ন ৩৪১ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

মঙ্গলবার (২৮ জুন) প্রধানমন্ত্রী ও একনেক চেয়ারপারসন শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় এ অনুমোদন দেওয়া হয়। গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে শেরেবাংলা নগরের এনইসি সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত সভায় যুক্ত হন প্রধানমন্ত্রী।

সভাশেষে প্রকল্পের সারসংক্ষেপ তুলে ধরেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। ২০২২ সালের জুলাই হতে ২০২৫ সালের জুন মেয়াদে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে সড়ক ও জনপথ অধিদপ্তর। প্রকল্প এলাকা: কক্সবাজার জেলার কক্সবাজার সদর, রামু ও উখিয়া উপজেলা।প্রকল্পের উদ্দেশ্য: কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের ৩০ দশমিক ৪০ কিলোমিটার সড়ক ৫ দশমিক ৫ মিটার প্রশস্ত করা এবং রেজু খালের ওপর বিদ্যমান ৩০৫ মিটার দীর্ঘ সেতুটি ১০ দশমিক ২৫ মিটার (দুই লেন) প্রস্থে উন্নীতকরণ করা। এর মাধ্যমে নিরাপদ যোগাযোগ ব্যবস্থা স্থাপন, পর্যটন শিল্পের প্রসারসহ প্রকল্প এলাকার আর্থ-সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন হবে।

প্রধান কার্যক্রম: ১১৩ দশমিক ২৫ একর ভূমি অধিগ্রহণ, সাত লাখ ২৪ হাজার ঘনমিটার মাটি ভরাট, ২৯ দশমিক ৪২ কিলোমিটার ফ্লেক্সিবল পেভমেন্ট প্রশস্তকরণ ও শূন্য দশমিক ৩২ কিলোমিটার ফ্লেক্সিবল পেভমেন্ট বাঁক সরলীকরণ কাজ করা হবে। এছাড়াও ছয় হাজার ৪৮০ মিটার আরসিসি রিটেইনিং ওয়াল নির্মাণ, ৬৩ হাজার ৭২০ বর্গমিটার জিও টেক্সটাইলসহ সিসি ব্লক স্থাপন, ৬০৮টি সিসি টিভি ক্যামেরা স্থাপন, ৫৪ হাজার ৩৬০টি টেট্রাপড নির্মাণ, ৯ হাজার ১২০ বর্গমিটার রোড মার্কিং, ইউটিলিটি স্থানান্তর, দুই লেনের একটি সেতু নির্মাণ (৩০৫ মিটার) করা হবে। একই সঙ্গে নির্মাণ করা হবে নিকাশ কাঠামো। এর মধ্যে থাকছে ৯ হাজার ১৮০ মিটার এল ড্রেন ও ১৩ হাজার ৯৪ মিটার ইউ ড্রেন। এছাড়াও ৮৭৪ জনমাস পরামর্শক সেবা ক্রয় করা হবে।

এ বিষয়ে পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান বলেন, প্রকল্পের আওতায় মেরিন ড্রাইভ সড়ক প্রশস্ত করবো। সাগরে ও মাটিতে দুই দিক থেকেই বাড়বে মেরিন ড্রাইভ সড়ক। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন হলে এটা আরও দেখার মতো হবে। তখন এখানে মন খুলে হাঁটতে পারবেন, প্রাণ খুলে শ্বাস নিতে পারবেন। আপনারা মালদ্বীপে কেন যাবেন? মেরিন ড্রাইভে যান, দেশটাকে আরও বেশি করে দেখেন।

এই ওয়েব সাইটের কোন লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বেআইনি।